banglanewspaper

করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত ব্যক্তির লাশ ভয়ে কেউ গোসল দিতে যাচ্ছে না। কাফনের ব্যবস্থাও সেভাবে হচ্ছে না। জানাজার নামাজেও পিছুটান। কোনো রকমে কবর দেওয়া হচ্ছে। আরও মানুষ মারা গেলে হয়তো এমনই হবে। সেজন্য কিছু যুবক এগিয়ে আসতে চাইছে। নিজেদের মনের কথা ফেসবুকে প্রকাশ করছেন।

কিন্তু আপনজনের এভাবে করুণ বিদায় অনেকেই মেনে নিতে পারছেন না। বিশেষ করে মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষেরা। আর তাইতো অনেকেই জীবনের পরওয়া না করে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত ব্যক্তির গোসল, কাফন দাফনের জন্য অনেকেই এগিয়ে আসতে চাইছে।

ফেসবুকে জয় চৌধুরী নামে একজন লিখেছেন- ‘সিলেটে অথবা সিলেটের বাইরে করোনায় আক্রান্ত কোনো রোগি যদি ইন্তেকাল করেন এবং তার জানাজা কাফন দাফন করতে ভয় পান তাহলে আমাকে বলবেন। ইনশাআল্লাহ আমি তার গোসল ও কাফন দাফন করব। প্রয়োজনে ইনবক্সে মোবাইল নাম্বার নিতে পারেন।

শো অফ করছি না জাস্ট মনের ইচ্ছে এবং মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে কথাটা বললাম। আল্লাহ আমাদের সকলকে রুক্ষা করুন।’

আর একটি পোস্টে তিনি লিখেছেন- ‘আমি একরাম চৌধুরী জয়। সদস্য: (নিরাপদ চিকিৎসা চাই)

যোগাযোগ : 01719046588, ব্লাড গ্রুপ : এ বি +

আলহামদুলিল্লাহ আমি একজন সুস্থ্ মানুষ। আল্লাহর উপর ভরসা রেখে আমি স্বজ্ঞানে দ্বায়িত্ব নিয়ে বলছি যে, বাংলাদেশে যদি কোথাও করোনাভাইরাসের কারণে বিশেষ (মহামারি) পরিস্থিতিতে স্বেচ্ছাসেবকের দরকার হয় দেশ জাতি জনগণ তথা সমগ্র বিশ্বের স্বার্থে স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে সেবা দিতে এবং জরুরি প্রয়োজনে ট্রেনিং নিতে ইচ্ছুক আমি।’

‘Let me know if any kind of training is provided to serve CORONA VIRUS affected patients.I want to join and stay beside them willingly.’

‘কতৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। সকলের সুস্থতা কামনা করি!’

আবার ফেরদৌস আহমেদ আবির নামে একজন ফেসবুকে লিখেছেন- ‘করোনায় আক্রান্ত মৃত ব্যক্তির জানাজা পড়াতে এবং গোসল দিতে আমি আবির ও জুনায়েদ প্রস্তুত। ঢাকার যে কোনো জায়গায় যে কেউ মারা গেলে আশপাশে যারা আছেন, যদি দেখেন জানাজা হচ্ছে না। সাথে সাথে নক দিন, আমরা রেডি আছি। আমি মৃত্যুকে ভয় করিনা।

যার যখন যেভাবে মৃত্যু লেখা পৃথিবী উল্টে গেলেও তার ১ সেকেন্ড আগেও তার মৃত্যু হবে না।

যোগাযোগ – 01921797587’

আর একজন লিখেছেন- ‘আমি তানজিল জনি, ফ্যাশন ডিজাইনার, উত্তরা সেক্টর ১২,ঢাকা। সজ্ঞানে দ্বায়িত্ব নিয়ে বলছি-বাংলাদেশে যদি কোথাও করোনা ভাইরাসের কারণে বিশেষ (মহামারি) পরিস্থিতিতে স্বেচ্ছাসেবকের দরকার হয় দেশ, জাতি জনগণ তথা সমগ্র বিশ্বের স্বার্থে স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে সেবা দিতে এবং জরুরি প্রয়োজনে ট্রেনিং নিতে ইচ্ছুক আমি।’

‘Let me know if any kind of training is provided to serve CORONA VIRUS affected patients.I want to join and stay beside them willingly.’

‘সকলের সুস্থতা কামনা করছি। ভালো থাকুক সবাই। সবার মঙ্গল করুক।’

চারিদিকে কেবল আতঙ্ক। কীভাবে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে যায়। এই ভয় সবার মধ্যে এখন। বাইরের দেশে প্রতিদিন আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃতের সংখ্যা। আমাদের দেশেও এক দুইজন করতে করতে আক্রান্তের সংখ্যা বিশজনে ঠেকেছে। একজনের মৃত্যু হয়েছে।

ট্যাগ: bdnewshour24 করোনা ভাইরাস