banglanewspaper

আলফাজ সরকার আকাশ শ্রীপুর(গাজীপুর) প্রতিনিধিঃ ফতেহ পাগলী। সারাদিন বাজারের বিভিন্ন দোকান আর রাস্তায় ঘুরাঘুরি। কোথায় কিছু না পেলেও হোটেলে গিয়ে একমুঠো  ভাতের সন্ধান পেতেন তিনি । তা দিয়েই পেটের ক্ষুধা মেটাতো ফতেহ পাগলী। আর বানু পাগলীর স্থান ছিল রেলওয়ে স্টেশন। তবে, আকস্মিক ভাবে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকানোর প্রয়োজনে ও নাগরিকদের সুস্থতা নিশ্চিত করতে প্রশাসনের নির্দেশে খাবারের হোটেলসহ জনসমাগম সীমিত হওয়ায় খাবার সংকটে পড়েছেন এ-সব ভিক্ষুক পাগলেরা। গাজীপুর জেলার শ্রীপুরের রেলপথ স্টেশন ও রাস্তায় এখন ঠিকানা হলেও ক্ষুধার তাড়নায় ভোগছেন তারা।

২৭ মার্চ শুক্রবার সকালে সরেজমিনে শ্রীপুর রেলওয়ে স্টেশন সংলগ্ন স্থানে ও কয়েকটি রাস্তার মোড়ে চোখে পড়ে একাধিক ক্ষুধার্থ মানুষের।

যদিও স্পেশাল রেসপন্স টিম (এস.আরটি) নামক একটি সংগঠন শুকনো খাবার নিয়ে তাদের পাশে দাঁড়িয়েছে। কিন্তু এদের সংখ্যা বেশি হওয়ায় সমাজের বিত্তবান শ্রেণির এগিয়ে আসা প্রয়োজন বলে মনে করেন সংগঠনের নেতারা।

সংগঠনটির এরিয়া কমান্ডেন্ট তুহিন আহমেদ জানান, জনসমাগম সীমিত ও খাবারের হোটেল বন্ধ হওয়ায় ভাসমান ছিন্নমূল মানুষ গুলো খাবার সংকটে ভুগছিল। তাদের কথা বিবেচনা করে আমাদের সংগঠনের উদ্যোগে দুই বেলার জন্য শুকনো খাবার যেমন, রুটি, কলা, বিস্কুট ও মুড়ির ব্যবস্থা করা হয়েছে। সমাজের বিত্তবান ব্যক্তিদের প্রতি অনুরোধ করছি,  আসুন সকলে মিলেমিশে তাদের পাশে দাঁড়াই। 

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ শামছুল আরেফীন জানান, ইতোমধ্যে ভিক্ষকদের তালিকা তৈরি হয়েছে। তাদের জন্য সরকারি সহয়তার কাজ চলছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে এ-সব ভাসামান মানুষের জন্য সমাজের বিত্তবান ব্যক্তিদের সহায়তা নিয়ে এগিয়ে আসা উচিৎ। এছাড়াও প্রশাসনের উদ্যোগে খাবারের বিষয়টি বিবেচনা করা হবে। 

ট্যাগ: bdnewshour24