banglanewspaper

গোটা ভারত ‘তালাবন্দি’। অথচ সে দেশের বিভিন্ন রাজ্যে আজও হাজার হাজার শ্রমিককে দেখা গিয়েছে রাস্তায়। অধিকাংশই ফিরছেন হেঁটে, অনেকে আবার ট্রাকে গাদাগাদি করে। এ দিকে দুশ্চিন্তা বাড়িয়ে করোনা-আক্রান্তের সংখ্যা ভারতে বেড়ে ১০২৪ হয়েছে। নিশ্চিত করেছে সেখানকার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। আর ভারতে মোট মৃত্যু হয়েছে ২৭ জনের। 

 

এদিকে আজ সকালেই কলকাতায় মৃত্যু হল দ্বিতীয় করোনা-আক্রান্তের। রবিবার গভীর রাতে কালিম্পঙের বাসিন্দা ৪৪ বছরের ওই মহিলার মৃত্যু হয়েছে উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজে।

 

গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে ১০৬ জনের শরীরে নতুন করে সংক্রমণ ধরা পড়েছে। শুধু আজই মারা গিয়েছেন ছ’জন। যে সব রাজ্যে সংক্রমণের হার বাড়ছে, এলাকা ধরে-ধরে সেই সব ‘হটস্পট’ চিহ্নিত করতে চাইছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

 

কিছু মৃত্যু নিয়ে তৈরি হয়েছে ধোঁয়াশাও। করোনা-সংক্রমিত সন্দেহে গোয়া মেডিক্যাল কলেজে ৬৮ বছরের এক বৃদ্ধাকে আইসোলেশনে রাখা হয়েছিল। আজ ভোরে তিনি মারা যান। কিন্তু রিপোর্ট না-আসায় একে এখনই করোনা-মৃত্যু বলতে চাইছে না স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। কেরেলায় সদ্য শারজা থেকে ফেরা বছর পঁয়ষট্টির এক বৃদ্ধও আজ হৃদ্‌রোগে মারা যান। তারও করোনা-পরীক্ষার রিপোর্ট আসা বাকি।

 

এদিকে, ভারতের ইন্দরের একটি পরিবারের তিন জনের মধ্যে সংক্রমণ ধরা পড়েছিল আগেই। সম্প্রতি করোনায় তাদের এক জন (৬৫ বছরের বৃদ্ধা) মারা গিয়েছেন। আজ সংক্রমণ ধরা পড়ল ওই পরিবারেরই বছর সতেরোর এক তরুণীর।

 

ভারতের সেনাবাহিনীতে আরও দু’টি সংক্রমণ ধরা পড়েছে। এক জন কলকাতার কম্যান্ড হাসপাতালের চিকিৎসক। অন্য জন দেহরাদূনের এক জুনিয়র কমিশনড অফিসার। লকডাউনের আগেই তিনি দিল্লি থেকে ফেরেন।

ট্যাগ: bdnewshour24