banglanewspaper

বিশ্বব্যাপী ভয়ানক তাণ্ডব চালাচ্ছে করোনা ভাইরাস। মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়া এই ভাইরাস নিয়ে বিশেষজ্ঞদের গবেষণার শেষ নেই। ছোঁয়াচে এই রোগের সংক্রমণের মাধ্যম নিয়ে এখনও চিন্তিত বিজ্ঞানীরা।

এটি ঠিক কীভাবে ছড়ায়, কখন ছড়ায়, সংক্রমণের লক্ষণ কী এসব এখনও কোনো উপসংহারে পৌঁছাতে পারেননি গবেষক বা বিজ্ঞানীরা। ফলে রহস্যময় এই ভাইরাসটি নিয়ে বিশ্বব্যাপী এখনও চলছে গবেষণা।

যারা এখন পর্যন্ত গবেষণা করেছেন, তারা বলছেন- সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখলে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ কমে আসে কি না এবং কতদিন এভাবে দূরত্ব বজায় রাখতে হবে, সে ব্যাপারে ধারণা পেতে হলে আগে জানতে হবে, কোভিড-১৯ আক্রান্ত কতজনের মধ্যে মৃদু উপসর্গ দেখা দিয়েছে বা কতজনের মধ্যে কোনো উপসর্গ দেখা যায়নি। মৃদু উপসর্গ দেখা দেওয়া বা উপসর্গহীন সংক্রমিতর সংখ্যা জানা গেলে তা সহায়ক হবে গবেষণার কাজে।

ব্লুমবার্গ-এর এক গবেষণা ও বিশ্লেষণমূলক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কলোম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জেফরে শামান চীনে সংক্রমণ ছড়ানোর বিষয়ে তথ্য একত্রিত করেছেন। তার পাওয়া সমীক্ষা অনুযায়ী চীনে মৃদু উপসর্গ বা উপসর্গহীন সংক্রমিতদের মাধ্যমেই এই মহামারী ছড়িয়ে থাকতে পারে। প্রকোপ শুরু হওয়ার আগেই ৮৬ শতাংশ মানুষের মধ্যে মৃদু উপসর্গ বা উপসর্গহীন সংক্রমিতরা এই ভাইরাস ছড়িয়েছেন বলে তার ধারণা। তার গবেষণাপত্রে সতর্ক করা হয়েছে এমন ‘নিরব সংক্রামক’দের ব্যাপারে।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক অর্থনীতি বিষয়ক গণমাধ্যমটি জানিয়েছে, আইসল্যান্ডে ব্যাপকহারে করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে। উপসর্গ থাক বা না থাক, পরীক্ষা করা হয়েছে সবারই। ফলাফল, ৫০ শতাংশ মানুষ করোনায় সংক্রমিত, কিন্তু কোনো উপসর্গ নেই। মৃদু উপসর্গ যাদের আছে তারা সাধারণত এগুলো নিয়ে উদ্বিগ্ন হন না এবং স্বাভাবিক চলাফেরার মাধ্যমে অন্যদের সংক্রমিত করে থাকেন।



গবেষণাকালে অধ্যাপক শামান দেখতে পান এমন অনেক সংক্রমিত রয়েছেন যাদের কোনো উপসর্গ নেই। আবার, এমনও পেয়েছেন যাদের সব উপসর্গ আছে কিন্তু সংক্রমণ নেই।

অধ্যাপক শামান বলেন, ‘সত্যি বলতে কোভিড-১৯ সংক্রমণ নিশ্চিত হওয়ার আগে আমরা ঠাণ্ডা বা ফ্লুয়ের মতো উপসর্গ নিয়ে নিজেদের কর্মস্থল, রেস্টুরেন্ট বা এমন সব জায়গায় যাই যেখানে জনসমাগম আছে। এই কারণেই এই সংক্রমণটি এত দ্রুত ছড়াতে পারছে।’

তিনি আরও জানান, কেউ সংক্রমিত হলে তার শরীরে লক্ষণ দেখা দিতে ১৪ দিন পর্যন্ত সময় লাগতে পারে। এই সময়ের মধ্যে সে অনেক মানুষকে সংক্রমিত করে ফেলার সম্ভাবনা আছে। শুধু সংক্রমিতদের ঘরে রাখলে চলবে না। এক অর্থে সবাই সংক্রমিত। তাই সবাইকে ঘরে থাকা নিশ্চিত করতে হবে।

ট্যাগ: bdnewshour24