banglanewspaper

ফরহাদ খান, নড়াইল: নড়াইলে করোনাভাইরাস মোকাবেলায় সবার পাশে আছেন যুব রেডক্রিসেন্টের স্বেচ্ছাসেবকেরা। নির্দিষ্ট দুরত্ব বজায় রাখাসহ স্বাস্থ্য সুরক্ষা মেনে জনসচেতনতা সৃষ্টিতে কাজ করছেন তারা। এরই ধারাবাহিকতায় প্রতিনিয়ত জীবাণুনাশ করাসহ পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতার জন্য মাঠে আছেন জেলা যুব রেডক্রিসেন্টের স্বেচ্ছাসেবকেরা। 

তারা নড়াইল সদর হাসপাতাল, জেলা কারাগার, আদালত চত্বর, ডাকঘর, ব্যাংক, সরকারি-বেসরকারি অফিস চত্বর, বিভিন্ন সড়ক, পৌর এলাকার পাড়া-মহল্লা, হাট-বাজার, বিভিন্ন দোকান, মসজিদসহ অন্য উপসানালয়ে জীবাণুনাশক স্প্রে করছেন। এমনকি বিভিন্ন ইউনিয়নের অনেক এলাকায়ও কাজ করেছেন তারা। এছাড়া সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখতে জেলার তিনটি উপজেলাতেই মাইকিং, লিফলেট বিতরণ, হাতধোয়ার জন্য সাবান পানি ও হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবস্থাসহ বিভিন্ন ধরনের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন রেডক্রিসেন্টের একঝাঁক তরুণ-তরুণী।

যুবপ্রধান শামীম আহম্মেদ শুভর নেতৃত্বে ৩০ জন স্বেচ্ছাসেবক মাঠে আছেন। তিনি বলেন, ২৩ মার্চ থেকে দিনরাত সারাক্ষণ মাঠে আছেন এবং সবাই সুস্থ শরীরে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। এছাড়া তাদের কন্ট্রোলরুম চালু আছে। এই ০১৯১০০০৯৬১৫ মোবাইল ফোন নাম্বারে ফোন দিলে সাধ্য অনুযায়ী সেখানে পৌঁছে যাওয়ার চেষ্টা করছেন স্বেচ্ছাসেবকেরা। 
এদিকে যুব রেডক্রিসেন্টের এসব কার্যক্রমে বিভিন্ন সময়ে অংশগ্রহণ করেছেন জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম (বার), জেলা রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সোহরাব হোসেন বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক কাজী ইসমাইল হোসেন লিটন, নড়াইল সদর হাসাপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডাক্তার মশিউর রহমান বাবু, নড়াইল পৌরসভার প্যানেল মেয়র রেজাউল বিশ্বাস, জেলা পরিষদ সদস্য রওশন আরা কবির লিলি প্রমুখ। 
এ ব্যাপারে জেলা রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইসমাইল হোসেন লিটন বলেন, দেশের প্রতিটি দুর্যোগে মানবতার সেবায় স্বেচ্ছায় কাজ করেন যুব সদস্যরা। করোনাভাইরাসের কঠিন সময়েও মাঠে আছেন তারা। সামনের দিনগুলোতেও মাঠে থাকবেন যুব রেডক্রিসেন্টের স্বেচ্ছাসেবকরা। 

ট্যাগ: bdnewshour24