banglanewspaper

গোলাম মোস্তফা রাঙ্গা: কোন কিছুতেই থামছে না করোনা ভাইরাসে প্রাণহানি। গোটা বিশ্বে প্রাণঘাতি এই ভাইরাসে প্রতিমিনিটে সংক্রমিত হচ্ছেন ৫৯ জন। ফলে পরিস্থিতি মোকাবেলায় হার্ডলাইন গ্রহণ করছে সরকার। উত্তরবঙ্গের মধ্যে গাইবান্ধা জেলায় প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী সবচেয়ে বেশি। দেশে প্রতিনিয়ত বাড়ছে এর সংখ্যা। লকডাউনে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে একের পর এক এলাকা। এর মধ্যে বিভিন্ন আইন-শৃংখলা বাহিনীর সঙ্গে জীবনের ঝুকি নিয়ে সারাদেশের ন্যায় গাইবান্ধাতেও আনসার  ও ভিডিপি সদস্যরা সাহসিকতার সাথে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। 

গাইবান্ধা আনসার ও ভিডিপি’র জেলা কমান্ড্যান্ট মোঃ এফতেখারুল ইসলাম জানান, ‘‘বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল কাজী শরীফ কায়কোবাদ, এনডিসি, পিএসসি, জি-এর আদেশে ও রংপুর রেঞ্জ কমান্ডার এ কে এম জিয়াউল আলমের নির্দেশনায় গাইবান্ধা জেলার ৮২টি ইউনিয়নে আনসার কমান্ডার ও ইউনিয়ন দলনেতা-দলনেত্রীগণ সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে কাজ করে যাচ্ছে।

এছাড়াও সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতকরণে মোট ৭টি পয়েন্টে ১৪জন আনসার ও ভিডিপি সদস্য দায়িত্ব পালন করছে। অপরদিকে সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জ ও মুন্সীগঞ্জ থেকে প্রায় শতাধিক ব্যক্তি ফুলছড়ি উপজেলায় এসেছেন। তাদেরকে ফজলুপুর ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স এবং টেংরাকান্দি এন এ সবুর দাখিল মাদ্রাসায় ১৪দিনের জন্য কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিতকরণে পুলিশের পাশাপাশি ১৯জন আনসার ও ভিডিপি সদস্য দায়িত্ব পালন করছে’’। 

করোনা প্রতিরোধের অংশ হিসেবে ইতোপূর্বে জনসাধারণের মাঝে এক হাজার মাস্ক ও পাঁচ হাজার লিফলেট বিতরণ করা হয় এবং জেলা কার্যালয়ের সামনে সেবাগ্রহীতা ও সর্বসাধারণের হাত ধোয়ার জন্য সাবান ও পানি ট্যাংকের ব্যবস্থা করা হয়।

উল্লেখ্য যে, বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল কাজী শরীফ কায়কোবাদ এনডিসি, পিএসসি, জি-এর অনুমোদনক্রমে চলমান করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব মোকাবেলায় গাইবান্ধা জেলা আনসার ও ভিডিপি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে অস্থায়ীভাবে ১০০ শয্যার আইসোলেশন কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে। জেলা প্রশাসক, সিভিল সার্জন, জেলা কমান্ড্যান্ট ও স্থানীয় উন্নয়ন সংস্থা এসকেএস ফাউন্ডেশনের সার্বিক সহযোগীতায় আইসোলেশন কেন্দ্রটি প্রস্তুত করা হয়।

আনসার ও ভিডিপির পক্ষ থেকে প্রস্তুতি কার্যক্রম তদারকি করেন সহকারী জেলা কমান্ড্যান্ট মোঃ তৌহিদুজ্জামান ও গাইবান্ধা সদরের উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা মোঃ সাজ্জাদ হোসেন। এখানে ইতোমধ্যে “করোনা” আক্রান্তদের চিকিৎসা কার্যক্রম শুরু হয়েছে।
 

ট্যাগ: bdnewshour24