banglanewspaper

ভারতে ফের বেড়ে গিয়েছে লকডাউনের মেয়াদ। অপেক্ষা করতে হবে ১৭ মে পর্যন্ত। ততদিন ঘরবন্দি জীবন। এমনকী লকডাউন ওঠার পরও মেনে চলতে হবে সমস্ত স্বাস্থ্যবিধি। তবে এই গৃহবন্দি অবস্থার মধ্যেও হাত গুটিয়ে বসে নেই সাংসদ অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী। পরপর মানুষের জন্য কাজ করে চলেছেন তিনি।

সম্প্রতি তিনি লাইভ স্ট্রিমিং করেন এবং ইফতারের সামগ্রী পাঠালেন রাজপুর আর সোনারপুরের বাসিন্দাদের জন্য। প্রায় ২০০টির উপর পরিবারকে পাঠালেন ইফতার সামগ্রী। 

লাইভ স্ট্রিমিংয়ের মাধ্যমে বাসিন্দাদের সামাজিক দূরত্ব মেনে রমজান পালনের বার্তাও দেন। এই করোনা ভাইরাস আক্রান্ত পৃথিবীতে শুধু বাংলা নয়, কোথাওই পাশাপাশি থেকে একজোট হয়ে ইফতার পালন করা সম্ভব নয় এই মুহূর্তে। 

মিমি সরাসরি সেখানকার বাসিন্দাদের সমস্যার কথাও শোনেন। ওখানকার বাসিন্দারা খুশি সাংসদ ও অভিনেত্রীর সঙ্গে কথা বলে এবং ইফতারের জিনিসপত্র পেয়ে।

মিমি চক্রবর্তী শুরু থেকেই নানাভাবে মানুষের কাছে করোনা সচেতনতার বার্তা পৌঁছে দিয়েছেন একজন দায়িত্বশীল সাংসদ তথা নাগরিকের মতো। সোশ্যাল মিডিয়াতেও এই নিয়ে সক্রিয় তিনি বরাবর।

লকডাউনের মধ্যে তিনি কখনও প্রসূতিদের সাহায্যের জন্য হাত বাড়িয়েছেন, এমনকী এইচআইভি আক্রান্ত শিশুদের জন্যও মিমি এগিয়ে এসেছিলেন। এবারে তিনি রমজান পালনে নতুন উদ্যোগ নিলেন এবং মানুষকে সচেতন করলেন। প্রসঙ্গত ইফতারের সময় এই রাজপুর-সোনারপুরের মানুষের সঙ্গে গত বছরও মিমি সময় কাটিয়েছিলেন।

ট্যাগ: bdnewshour24