banglanewspaper

নাগরপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি: টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলার সদর ইউনিয়নের পানান গ্রামের ছইনুদ্দি এর ছেলে বাক- প্রতিবন্ধি মিজানুর রহমান (৩৫) একই গ্রামের ৫ বছরের এক মেয়ে শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টা করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

গত ৩ মে রবিবার আনুমানিক বিকেল ৫ টা এর সময় পাশের একটি ফাঁকা (পরিত্যক্ত) বাড়িতে ৫ বছরের শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টা করেছে বলে জানা যায়। 
ঘটনার পর থেকে মেয়েটিকে টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়াচ্ছে।

শিশুটির মা বলেন, আমার চঞ্চলা মেয়েটা হঠাৎ করেই থমকে গেছে। গত রবিবার ৩ মে, মোর্শেদের ফাঁকা বাড়িতে আমার মেয়েকে ধর্ষণের চেষ্টা  করে ছইনুদ্দিনের বোবা ছেলে মিজানুর। শিশু মেয়ের সাথে এমন নির্যাতনের দৃষ্টান্ত মূলক বিচার চেয়েছেন তার বাবা ও মা।
এলাকাবাসীর কাছে জানতে চাইলে তারা বলেন,  সুষ্ঠ তদন্ত করে এই কাজের সাথে জড়িতদের কঠিন শাস্তি দেয়া উচিত। 

ধর্ষণের চেষ্টার বিষয়ে নাগরপুর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের ৯/৪, খ ধারা এবং তথ সহ দন্ড বিধি ৫০৩ ধারায় ৭ নং ক্রমিকে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন, তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মো. মামুন মৃধা। নাগরপুর থানা পুলিশের একটি চৌকস দল এসআই মো. মামুন মৃধা এর নেতৃত্বে এএসআই মো. রাসেল মিয়া, কনস্টেবল আব্দুল জব্বার শিশু ধর্ষনের চেষ্টার আসামি ছইনুদ্দিনের ছেলে মিজানুর কে একটি সফল অভিযান পরিচালনা করে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।
চৌকস দলটি বলেন, শিশুটির সাথে এমন অমানবিক নির্যাতনকারীকে আমরা ঘটনা শোনা মাত্রই ওসি স্যারের নির্দেশে অভিযান পরিচালনা করে তাকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হই। আমরা আশাবাদী, তদন্তে বের হয়ে আসবে এর সাথে আর কেউ জড়িত আছে কি না।

এ বিষয়ে নাগরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি মো. আলম চাঁদ বলেন, মেয়ে শিশুটির বাবা থানায় এসে আমাদের কাছে একটি অভিযোগ দেন। তখনই  এই বিষয়ে তার মৌখিক বিবরন শুনে দ্রুত আমরা অভিযান পরিচালনা করে অভিযুক্ত পুরুষকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হই। আজকে মূল আসামি মিজানুর কে বিজ্ঞা আদাতে প্রেরণ করা হয়েছে। মামলাটি খুবই স্পর্শ কাতর, তাই তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত এর চেয়ে বেশি কিছু এই মূহুর্তের সম্ভব না।

ট্যাগ: Bdnewshour24