banglanewspaper

নাগরপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি: টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলা সদর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক সেবিকার গার্মেন্টস কর্মী স্বামী করোনা আক্রান্ত হয়েছে।

সাভারের পার্চ গ্রুপ নামক গার্মেন্টস একজন করোনা আক্রান্ত হয়। আক্রান্তের সহকর্মী গত বুধবার ১৩ মে ২৭ বছর বয়সী পুরুষটি ছুটিতে চলে আসেন সেবিকা স্ত্রীর এর কাছে নাগরপুরে।

পরে, করোনা সন্দেহ হলে তার নমুনা গত ১৭ মে রবিবার পরীক্ষায় পাঠানো হয়। কিন্তু দুঃখ জনক হলেও তার রিপোর্ট আসে আজ ২০ মে বুধবার সকাল অনুমানিক ৯.১৫ মিনিটে।

রিপোর্ট হাতে পেতে গেলে যাচ্ছে অনেক সময়। ফলে বিনা বাঁধা ছড়িয়ে পরছে করোনা ভাইরাসের জীবানু। 
এ বিষয়ে উপজেলার সচেন মহল বলছেন, পরীক্ষার রিপোর্ট দ্রুত হাতে পৌঁছাতে পারলে, সংক্রামনের সংখ্যা কমানো সম্ভব। অথবা যাদের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য প্রেরণ করা হচ্ছে তাদেরকে নমুনা সংগ্রহের পর থেকে রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত প্রাতিষ্ঠানিক হোম কোয়ারান্টাইনে রাখা হলে এদের থেকে সংক্রামিত হওয়ার সংখ্যা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে।

এ বিষয়ে নাগরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প.প. কর্মকর্তা মো. রোকুনুজ্জামান খান বলেন, নতুন এই করোনা আক্রান্ত রোগীর বিষয়টি আইইডিসিআর এর রিপোর্টের ভিত্তিতে নিশ্চিত করেন। এতে করে উপজেলায় আক্রান্তের সংখ্যা দাড়ালো ১০ জন। নাগরপুর সদর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের যে কোয়ার্টারে ঐ সেবিকা তার স্বামীকে নিয়ে ছিলেন, সেটা পুরোপুরি সিল করে দেয়া হয়েছে। এছাড়াও আক্রান্তের স্ত্রী (সেবিকা) ও তার স্বামীর যাদের সাথে সংস্পর্শে এসে ছিলেন, তাদেরও নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষায় পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে। 

রোগীর তথ্যঃ মধুপুরের আব্দুল বারেক এর ছেলে আবুল কালাম(২৭)।

ট্যাগ: bdnewshour24