banglanewspaper

নাগরপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি: টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলার সহবতপুর ইউনিয়নের ইরতা গ্রামের মরহুম করিম চেয়ারম্যানের বড় ছেলে মো. আব্দুল হাই ঘরে থাকা কর্মহীন দরিদ্রদের ঈদ উপহার হিসেবে নগদ টাকা প্রাদান করলেন।

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিহত করতে সরকারি নির্দেশনায় দেশের সর্ব স্তরের মানুষ যখন ঘরে অবস্থান করছে। তখন দিন এনে দিন খাওয়া  দরিদ্র শ্রমিক ও বৃদ্ধ মানুষদের জীবনে ক্ষুধার কষ্ট নেমে এসেছে। আর দুই দিন পরেই মুসলিমদের পবিত্র ঈদ। তাই ঈদের আনন্দ সবার সাথে ভাগকরে নিতে তাদের হাতে তুল দিয়েছেন নগদ টাকা।

এলাকার মানুষদের মুখে ঈদের হাসি ফোটাতে মানবিকতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন সরকারের পাশাপাশি নাগরপুরের প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী মো. আব্দুল হাই।

সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ও ব্যক্তিগত সুরক্ষার মাস্ক পরিহিত ২২৫ জন দরিদ্রদেরকে ২০ মে বুধবার ও ২১ মে বৃহস্পতিবার সকালে মরহুম করিম চেয়ারম্যানের বাসভবন সংলগ্ন ইতরতা মাদরাসা থেকে ঈদ উপহার দেয়া হয়েছে।

এদের মধ্যে সহবতপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের দরিদ্র শ্রমিক, বর্গা কৃষক, এতিম, বৃদ্ধ, নারী-পুরুষ। তাদের পরিস্থিতি বিবেচনা করে জন প্রতি ৫০০-৫০০০ টাকা হাতে তুলে দেন সাবেক চেয়ারম্যানের বড় ছেলে বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মো. আব্দুল হাই।

এ বিষয়ে তিনি বলেন, করোনা মোকাবিলায় সারা দেশের মানুষের মতোই সহবতপুরের মানুষ অংশগ্রহণ নিশ্চিত করছে। বিগত মাসে সরকারের পাশাপাশি তাদের জন্য খাদ্য সহায়তা দিয়েছি।
আসন্ন ঈদে প্রতিটি মানুষের প্রয়োজন ভিন্ন, এদের কারো বাড়িতে হয়তো চাউল আছে কিন্তু তরকারি নেই। আবার কেউ হয়তো তার বাচ্চার জন্য খাদ্য বা পোশাক কিনতে পারছে না। তাই আমার ইউনিয়নের এসব লোকদের হাতে নগদ টাকা দিয়েছি। তাদের প্রয়োজন অনুযায়ী যাতে তারা খরচ করতে পারে।
গ্রামের দরিদ্র মানুষদের অর্থিক বিষয় বিবেচনা করে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করে দুই দিনে মাস্ক পরিহিত ২২৫ জনকে  জন প্রতি ৫ শত টাকা থেকে ৫ হাজার টাকা তাদের হাতে দিয়েছি।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন, সহবতপুর বাজার বনিক সমিতির সাবেক সভাপতি মো. আলাল উদ্দিন, সমাজ সেবক মো. সাগর মিয়া।

ট্যাগ: bdnewshour24