banglanewspaper

চলমান করোনা মহামারির প্রাদুর্ভাবে সরকারের নানামুখি পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আমরা বাংলাদেশে প্রাণপণ চেষ্টা করে যাচ্ছি এই করোনা ভাইরাস থেকে দেশের মানুষকে রক্ষা করতে, মানুষকে সুরক্ষিত করতে। দেশের মানুষের স্বাস্থ্য সুরক্ষিত করা এবং পাশাপাশি অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড সচল করা ও তাদের সামাজিক নিরাপত্তা দেয়া- সবদিক থেকেই আমরা কাজ করে যাচ্ছি।’

বৃহস্পতিবার (৪ জুন) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে (পিএমও) তাঁর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবিলায় বিভিন্ন সরকারি, বেসরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান এবং ব্যক্তির কাছ থেকে অনুদান গ্রহণকালে এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে সংযুক্ত হয়ে ভাষণ দেন। তাঁর পক্ষে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস পিএমওতে অনুদানের চেক গ্রহণ করেন।

লকডাউন শিথিল করার প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর বলেন, ‘যেহেতু অর্থনীতি একেবারে স্থবির অবস্থায় রয়েছে আমরা কিছু কিছু ক্ষেত্র এখন উন্মুক্ত করছি। কারণ, মানুষকে তো আমাদের বাঁচাতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘এই কর্মকাণ্ডগুলো না করলে আমরা আর কতটা সহযোগিতা করতে পারবো। তারপরও আমি বলবো- এই কয়মাস দেশের নিম্ন থেকে মধ্যবিত্ত এবং উচ্চবিত্তসহ প্রায় প্রতিটি শ্রেণির মানুষকে ব্যাপকভাবে সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছি।’

সরকারপ্রধান বলেন, ‘সরকারের পক্ষ থেকে আমরা কাজ করছি, দলের পক্ষ থেকেও করছি। অনেক বিত্তশালী, তারাও মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে এই আন্তরিকতাটুকু আছে বলে এখনও তারা খেতে পারছে বা চলতে পারছে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এই সহানুভূতিটুকু যেহেতু মানুষ দেখাতে পারছে সেজন্য কিন্তু এখনও আমাদের দেশের একেবারে তৃণমূল পর্যায়ের মানুষের নিজের জীবন-জীবিকা চালিয়ে নেয়ার সঙ্গতি রয়েছে। সেটা অব্যাহত থাকুক, সেটাই আমরা চাই।’

এসময় তিনি দেশের প্রায় এক কোটি তালিকাভুক্ত মানুষকে খাদ্য সহায়তা প্রদানে তাঁর সরকারের প্রচেষ্টার কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘বিনা পয়সায় খাদ্যের ব্যবস্থা যেমন করেছি আবার একটু যারা বিত্তশালী, তাদের জন্য ১০ টাকা কিলো দলে আমরা চাল সরবরাহ করেছি। চেষ্টা করছি দল-মত নির্বিশেষে প্রতিটি শ্রেণি-পেশার মানুষের কাছে আমাদের সহযোগিতা পৌঁছে দিতে। মানুষ যেন কষ্ট না পান সেটাই আমাদের লক্ষ্য। সেই লক্ষ্য নিয়েই আমরা কাজ করে যাচ্ছি।’

ট্যাগ: bdnewshour24