banglanewspaper

স্বাভাবিক জীবনযাত্রায় ফেরার চেষ্টাকে ম্লান করে দিয়ে গেল দুই সপ্তাহ ধরে দেশে ব্যাপক হারে করোনার আক্রান্ত রোগী ও মৃত্যুর ঘটনা বেড়েছে। ফলে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে সরকার আবারও রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে জোনভিত্তিক লকডাউন পদ্ধতিতে ফিরছে। এরই ধারাবাহিকতায় আজ রবিবার (৭ জুন) থেকে ঢাকায় জোনভিত্তিক কঠোর লকডাউন শুরু হচ্ছে। 

ঈদুল ফিতরকে কেন্দ্রে করে লাখ লাখ মানুষের বিভিন্ন গন্তব্যে গমনাগমন, ঈদ শেষে এক এক করে ঢাকার বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান খুলতে শুরু করায় আবারও ঢাকামুখি মানুষের চাপ, একইসময়ে সীমিত আকারে সারা দেশে গণপরিবন চালু করা- দেশে করোনা সংক্রমণের বিস্তারকে বহুগুণ বৃদ্ধি করেছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। 

তবে সংক্রমণের মাত্রা বাড়লেও দেশের জনজীবন ও দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে সরকার আর সাধারণ ছুটিতে যেতে চায় না। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আরও আগেই একই জোনভিত্তিক লকডাউন পদ্ধতিতে যাওয়া দরকার ছিল। এ নিয়ে বিলম্বের মাশুল না দিয়ে উপায় নেই এখন।

লকডাউনের নতুন পদ্ধতি নিয়ে গতকাল শনিবারও দফায় দফায় বৈঠক করেছে স্বাস্থ্য, স্বরাষ্ট্র, জনপ্রশাসন ও আইসিটি মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দফতর। 

বৈঠক শেষে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন জানান, পুরো দেশে আর সাধারণ ছুটির চিন্তু নেই সরকারের। ঝুঁকি বিবেচনায় রেড, ইয়েলো ও গ্রিন জোনে ভাগ করার দিকেই এগোচ্ছে সরকার।  

সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও অধিদফর সূত্র জানিয়েছে, প্রথম দফায় সরকার রাজধানী ঢাকাকে উচ্চ অগ্রাধিকার দেয়া হচ্ছে। ঢাকায় সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত এলাকাগুলো চিহ্নিত করার কাজ প্রায় শেষ হয়েছে। এখন ওইসব এলাকায় লকডাউন দেয়া হবে। 

আইইডিসিআর, স্বাস্থ্য অধিদফতর ও আইসিটি মন্ত্রণালয়ের সহায়তা নিয়ে রবিবার থেকেই ঢাকায় জোন ভাগের কাজ শুরু হবে বলেও জানিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে এবার লকডাউনে সর্বোচ্চ কড়াকড়ি আরোপ করা হবে। লকডাউন করা ‘রেড জোন’ এর পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত কাউকে বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বাইরে বের হতে দেয়া হবে না।

এ বিষয়ে অতিরিক্ত স্বাস্থ্য সচিব হাবিবুর রহমান জানিয়েছেন, ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় রবিবার থেকেই জোন ভাগ করা হবে। রেড জোনগুলোতে সবকিছু বন্ধ থাকবে। ওইসব এলাকায় শতভাগ লকডাউন কার্যকর হবে।

ট্যাগ: bdnewshour24