banglanewspaper

মহামারি করোনা ভাইরাসে থমকে গেছে দেশের অর্থনীতি। বিশ্ববাজারেও ঘনীভূত হচ্ছে মন্দা। সেই প্রভাব পড়েছে বাংলাদেশের শেয়ারবাজারেও। গত ১৩ বছরের মধ্যে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) লেনদেন নেমেছে সর্বনিম্নে। 

রবিবার (২১ জুন) সপ্তাহের প্রথম দিন ডিএসইতে মোট ৩৮ কোটি ৬২ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যা গত বৃহস্পতিবারও ছিল ৬৯ কোটি ৬৫ লাখ টাকা। 

সবশেষ ২০০৭ সালের ২৩ এপ্রিল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে একদিনে এমন সর্বনিম্ন লেনদেনের রেকর্ড হয়েছিল। 

শেয়ারের ফ্লোর প্রাইজ নির্ধারণ করে দেয়ার কারণে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে অস্বস্তি বিরাজ করেছে। এ কারণেই তারা শেয়ার কিনতে আগ্রহ দেখাচ্ছেন না বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। এখন শেয়ার কেনার পর ফ্লোর উঠিয়ে দিলে টাকা আটকা পড়তে পারে- এমন আশঙ্কা থেকেই শেয়ারবাজার থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন বিনিয়োগকারীরা।

রবিবার লেনদেন কমলেও ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের চেয়ে ২ দশমিক ৪০ পয়েন্ট বা দশমিক ০৬ শতাংশ বেড়ে ৩ হাজার ৯৬২ দশমিক ৯৮ পয়েন্ট হয়েছে। 

এদিন ডিএসইতে ২৪৫টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এরমধ্যে দর বেড়েছে ১৭টির, আর কমেছে ১৪টি কোম্পানির শেয়ার দর। তবে ২১৪টির দর রয়েছে অপরিবর্তিত।

দেশজুড়ে নভেল করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে আতঙ্ক আর টানা দরপতনের কারণে গত ১৯ মার্চ সার্কিট ব্রেকারের নিয়মে পরিবর্তন আদেশ জারি করেছিল বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি)।

ট্যাগ: bdnewshour24