banglanewspaper

তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সাতক্ষীরা সদরের বৈকারী ইউনিয়নের ছয়ঘরিয়া গ্রামে সাতবছরের এক শিশুকে গ্যাস ট্যাবলেট খাইয়ে হত্যা করে এক মাও আত্মহত্যা করেছেন। তবে অলৌকিকভাবে গ্যাস ট্যাবলেট খাওয়ানোর পরও বেঁচে গেছে ২ বছরের বাচ্চা মেহেরিমা খাতুন।

সোমবার (২২ জুন) দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। নিহতের নাম তাজমিরা খাতুন (২৬) ও তার ৭ বছরের বাচ্চা ফতেমা খাতুন।

এদিকে ঘটনা ঘটার সংবাদ পেয়েই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন সাতক্ষীরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ, বৈকারী ইউপি চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান অসলে, স্থানীয় মেম্বর আ. হান্নান প্রমুখ।

স্থানীয়রা জানান, দীর্ঘদিন যাবত বউ শাশুড়ির মাঝে পারিবারিক বিরোধ চলছিল। দুপুর দেড়টার দিকে শাশুড়িকে ভাত দেওয়াকে কেন্দ্র করে শাশুড়ি রিজিয়া খাতুন(৪৫) এর সাথে ওই গৃহবধূর কথা কাটাকাটি হয়। এর পর ওই গৃহবধূ দুই শিশুবাচ্চা ফতেমা খাতুন ও মেহেরিমা খাতুনকে নিয়ে বাড়ি হতে চলে যান। এরপর দুপুর ২ টার দিকে স্থানীয়রা বাড়ির পাশের একটি বাগানে তাদের ছটফট করতে দেখেন। তখন তারা ওই বাচ্চারা ও গৃহবধূকে উদ্ধার করে স্থানীয় ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়ার সময় পথিমধ্যে ওই গৃহবধূ ও ৭ বছরের শিশুটি মারা যান। তবে অলৌকিকভাবে বেঁচে যায় ছোট বাচ্চা মেহেরিমা খাতুন।

সাতক্ষীরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসাদুজ্জামান বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। স্থানীয়দের মতে জানা গেছে তারা গ্যাস ট্যাবলেট খেয়েছিল। লাশ ময়ানাতদন্তের জন্য সাতক্ষীরা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে। ময়নাতদন্ত শেষে আসল ঘটনা জানা যাবে।

ট্যাগ: bdnewshour24