banglanewspaper

বরিশাল-ভোলা ও লক্ষিপুরের মজুচৌধুরী হাট নৌরুটে লিজকৃর্ত এসটি খিজির (৫) নৌযানকে বিআইডব্লিউটি’র দেয়া নিয়ম-বিধি লঙ্ঘন করে অবৈধভাবে চলাচলের সুযোগ দেয়ার অভিযোগ উঠেছে ভোলার পোর্ট অফিসারের বিরুদ্ধে।

এতে করে যাত্রী সংকটের কারণে নিয়মিত ব্যাক্তি মালিকানাধীন যাত্রী পরিবহন নৌ-যান লঞ্চ এমভি পারিজাত ও এমভি দোয়েল নামের লঞ্চ দুটি আর্থিকভাবে প্রতিদিন লোকসানের মুখ দেখছেন।

সূত্র জানায়, বিআইডব্লিউটি’এ কর্তৃপক্ষ এর সমাধান যদি না করে তাহলে যেকোন সময়ে যাত্রী পরিবহন ও চলাচল বন্ধ করে দেয়া হতে পারে তাদের লঞ্চ। যদি বরিশাল থেকে এই দুটি লঞ্চ চলাচল বন্ধ হয়ে যায় তাহলে বর্ষা মৌসুমে বরিশাল-ইলিশা ও মজুচৌধুরী রুটের সাধারণ যাত্রীদের চরম দুর্ভোগের মুখে পড়ার সম্ভবনা রয়েছে।

মেসার্স জামান এন্টার প্রাইজের অভিযোগ ও অনুসন্ধান করে জানা গেছে, প্রতিদিন বরিশাল নৌ-বন্দর থেকে যাত্রী নিয়ে ছেড়ে যাওয়া এমভি পারিজাত ভোলার ইলিশা ঘাটে যাত্রী নামিয়ে দিয়ে পুনরায় সকাল ৯.২৫মিনিটে মজুচৌধুরী উর্দ্দেশ্যে যাত্রী নিয়ে ছেড়ে যায়।

একই মালিকের অপর লঞ্চ এমভি দোয়েল পাখি ভোলার ইলিশা ঘাট থেকে যাত্রী নিয়ে সকাল ১০.৩০ মিনিটে যাত্রী নিয়ে পুনরায় মজু চৌধুরী উর্দ্দেশ্যে ঘাট ত্যাগ করবে।

অপরদিকে লীজকৃর্ত সম্পদ এস.টি খিজির বিআইডব্লিউটি’র রুট পারমিট নিয়ম অনুযায়ী পরবর্তী সময় সকাল সাড়ে ১১ টায় যাত্রী নিয়ে ইলিশা ঘাট ত্যাগ করার অনুমতি রয়েছে।

এদিকে বেশ কিছুদিন যাবত এস.টি খিজির বিআইডব্লিউটি’র রুট পারমিট আইন উপেক্ষা করে এবং বরিশাল থেকে ছেড়ে যাওয়া এমভি পারিজাত ঘাটে বাদিং করার পূর্বেই ভোলার ইলিশা ঘাট থেকে যাত্রী নিয়ে সকাল পোনে নয়টার মধ্যে খিজির পল্টুন ত্যাগ করে চলে যায়।

ইলিশা ঘাট নৌ ইন্সেপেক্টর জসিম উদ্দিন ও সাজাহানের সহযোগীতায় অবৈধভাবে যাত্রী পরিবহন করার সহযোগীতা করার কারণে পরবর্তী সময়ে এমভি পারিজাত ঘাটে পৌছে যাত্রী নামিয়ে দিয়ে পুনরায় মজু চৌধুরীর উর্দ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়ার সময়ে যাত্রী সংকট ও অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতি গ্রস্থ হচ্ছে। এতে করে প্রতিদিন লোকসানের মুখে ওই লঞ্চ মালিক তাদের চলাচলের ক্ষেত্রে একরকম বন্ধ করে দেয়ার চিন্তায় রয়েছে বলে লঞ্চের মাস্টার ও স্টার্পরা বলেন।

এ বিষয়ে বরিশাল নৌ-বন্দর পল্টুন এলাকার ঘাট পরিচালনাকারী কর্মকর্তারা বলেন যদি বরিশাল থেকে পারিজাত ও দোয়েল পাখি লঞ্চ দুটি চলাচল বন্ধ হয়ে যায় তাহলে এখানকার প্রতিদিন কয়েকশত যাত্রী যারা বরিশাল হয়ে ভোলা, লক্ষিপুর ও চট্রগ্রামে আসা-যাওয়া করে সেসকল যাত্রী সাধারণরা চরম দূর্ভোগের শিকার হবেন।

একইভাবে বরিশাল নদী-বন্দর ঘাট পরিচালনাকারী ইজারাদাররাও আর্থিক ক্ষতিগ্রস্থের শিকার হবেন বলে তারা জানান।

এ ব্যাপারে বরিশাল নদী-বন্দর উপ-পরিচালক আজমল হুদা মিঠুর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন আগে এ বিষয় আমাদের হাতে ছিল এখন তা ভোলা পোর্ট অফিসার দেখাশুনা করে থাকেন।

তিনি আরও জানান এস.টি খিজিরের ব্যাপারে পূর্বেও বিআইডব্লিউটি’এর নিয়ম বিধি লঙ্ঘন করে চলাচল করার বহু অভিযোগ আমাদের কাছে রয়েছে এবং তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করার প্রক্রিয়া শুরুর আগেই আমাদের কাছ থেকে দপ্তর পরিবর্তন হয়েছে।

এ ‍বিষয়ে ভোলা পোর্ট অফিসার (অতিরিক্ত) পরিচালক কামরুজ্জামানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিষয়টি সত্যতা স্বীকার করে বলেন আমি বর্তমান করোনা পরিস্থিতির কারণে এস.টি খিজির চলাচলের অনুমতি দিয়েছি।

তিনি বলেন, ভোলার ইলিশা ঘাট থেকে প্রচুর মানুষ মজুচৌধুরী রুটে চলাচল করে এবং তারা সকাল ৬টার মধ্যে পল্টুনে ভীড় জমায় একারণেই যাত্রীদের শারীরিক দূরুত্বতা বজায় রাখতে আমি খিজির সকালে ছাড়ার অনুমতি দিয়েছি।

তবে এর পূর্বেই এমভি পারিজাত ও দোয়েল পাখি লঞ্চ কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করেছেন বলেন তিনি দাবি করেন।

এ বিষয় পরিজাত ও দোয়েল পাখি লঞ্চ কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান ভোলার পোর্ট অফিসার কামরুজ্জামানের সাথে আমাদের কোন কথা বার্তা হয় নাই। তাছাড়া রুট পারমিট প্রদান করে ঢাকা থেকে পোর্ট অফিসার এককভাবে বিআইডব্লিইটি’র নিয়ম ভেঙ্গে অন্য কোন লঞ্চ চলাচলের অনুমতি দিতে পারেন না।

আমরা যতটুকু জানি  তিনি এস.টি খিজির ইজারাদার কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অর্থের চুক্তির বিনিময়ে সকাল সাড়ে ১১ টার সময়ে ছাড়ার লঞ্চ সকাল পোনে ৯ টায় ছাড়ার অনুমতি দিয়ে নিয়মিত চলাচলের রুটের লঞ্চের আর্থিক ক্ষতিগ্রস্থ করেছে। অন্যদিকে তিনি বিআইডব্লিউটি’এর একজন কর্মকর্তা হয়ে তাদের কেন্দ্রীয় আইন ভেঙ্গে অণ্য লঞ্চ চলাচলের অনুমতি দেবার কেহ না। এটা সম্পূর্ণ অবৈধ আমরা চাই যাত্রীদের সুবিধার্থে পূর্বে যে যার নিয়মে চলাচলের বিধান রয়েছে সেভাবে চলাচলের ব্যবস্থা করবেন। 

ট্যাগ: bdnewshour24