banglanewspaper

তুরস্কের আয়া সোফিয়া নিয়ে এ বার মুখ খুললেন পোপ ফ্রান্সিস। রোববার ভ্যাটিকানে প্রার্থনার পরে পোপ বলেন, 'আয়া সোফিয়ার ঘটনায় আমি ব্যথিত। ইস্তানবুলের কথা বার বার মনে পড়ছে।'

রোববার আয়া সোফিয়া নিয়ে এই দুই বাক্যই বলেছেন পোপ। তবে গোটা বিশ্বেই ইস্তানবুলের সিদ্ধান্ত নিয়ে আলোড়ন ছড়িয়েছে। অনেকেই এর নিন্দা করছেন। 

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার তুরস্কের একটি আদালত ঘোষণা করে, আয়া সোফিয়াকে ফের মসজিদ হিসেবে ব্যবহার করা যাবে। আদালতের ঘোষণার পরেই তাকে স্বাগত জানান তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রেচেপ তাইয়িপ এর্দোয়ান। একটি নির্দেশনায় সই করে তিনি জানিয়ে দেন যে, আগামী ২৪ জুলাই থেকে ফের নামাজের জন্য ব্যবহার করা যাবে মসজিদটি।

প্রায় দেড় হাজার বছর আগে তৈরি হয়েছিল আয়া সোফিয়া। ক্রিশ্চান ক্যাথিড্রাল হিসেবে এই বিশাল কাঠামো তৈরি করা হয়। কিন্তু ১৪৫৩ সালে অটোমানরা রাজত্ব করতে এসে গির্জাটিকে মসজিদে রূপান্তরিত করেন। এরপর ১৯৩৪ সালে তুরস্কের উদারপন্থী নেতা তথা আধুনিক তুরস্কের জনক কামাল আতাতুর্ক মসজিদটিকে জাদুঘর হিসেবে ব্যবহারের নির্দেশ দেন। 

সেই থেকে পৃথিবীর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ জাদুঘর হিসেবে চিহ্নিত হয় আয়া সোফিয়া। শুধু তাই নয়, ধর্মীয় সহাবস্থানের একটি মডেল হিসেবে চিহ্নিত হয় কাঠামোটি। বস্তুত, আয়া সোফিয়ার ভিতরে গির্জা এবং মসজিদ স্থাপত্যের এক আশ্চর্য সহাবস্থান দেখতে পান ইতিহাসবিদরা।

এর্দোয়ান অবশ্য জানিয়েছেন, মসজিদ হিসেবে ব্যবহৃত হলেও আয়া সোফিয়া দেখার জন্য সমস্ত ধর্মের পর্যটকরাই সেখানে প্রবেশ করতে পারবেন। কিন্তু তাতেও নিন্দা থামছে না। গ্রিস সহ বেশ কিছু দেশ তুরস্কের এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেছে। ইউনেস্কো জানিয়েছে, আয়া সোফিয়ার ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ স্টেটাস পুনর্বিবেচনা করা হবে।

জার্মানির তুর্কি সম্প্রদায়ও এর্দোয়ানের বিরোধিতা করে জানিয়েছেন, এর ফলে দেশের ভাবমূর্তি ধাক্কা খেল। দেশের ভিতরেও প্রতিবাদ হচ্ছে। বিশিষ্ট লেখক অরহান পামুক সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, 'ধর্মনিরপেক্ষ তুরস্ক নিয়ে আমাদের দীর্ঘদিনের গর্ব ছিল, তা ধসে গেল। ধর্মনিরপেক্ষ মানুষের কথায় কান দিল না দেশ।'

তবে আয়া সোফিয়াকে ফের মসজিদে পরিণত করার জন্য যথেষ্ট চাপও ছিল দেশের ভিতর। একাংশের মানুষ অনেক দিন ধরেই চাইছিলেন, কাঠামোটি আবার মসজিদ হিসেবে খুলে দেওয়া হোক। দেশের সরকারও তা সমর্থন করেছিল। শেষ পর্যন্ত আদালতের রায়ে তা সত্যি হলো।

ট্যাগ: bdnewshour24