banglanewspaper

‘সুমন আমি জেকেজির চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা বলছি। তুমি খুব কিউট। আমার প্রতিনিধি পাঠাচ্ছি। করোনা নমুনা সংগ্রহ করতে সব ধরনের সহযোগিতা কর।’

সরকারের কাছ থেকে বিমানমূল্যে নমুনা সংগ্রহের অনুমতি নিয়ে বুকিং বিডি ও হেলথকেয়ারের নামে দুটি সাইটের মাধ্যমে টাকা নেয়া ও নমুনা পরীক্ষা ছাড়াই ভুয়া রিপোর্ট জালিয়াতির অভিযোগে গ্রেফতারের পর ৩ দিনের রিমান্ডে থাকা জেকেজি হেলথকেয়ারের চেয়ারম্যান ও জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের চিকিৎসক ডা. সাবরিনা শারমিন হুসাইন ওরফে সাবরিনা আরিফ চৌধুরীর মোবাইল ফোন চেক এমনই কথোপকথনের রেকর্ড পেয়েছে পুলিশ।

প্রতিটি মেসেজের শুরুতেই সাবরিনা নিজেকে জেকেজির চেয়ারম্যান দাবি করেন। গত রবিবার ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) হারুন অর রশিদের জিজ্ঞাসাবাদে এমনই তথ্য পাওয়া যায়।

ডিসি হারুন গতকাল গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ৩ দিনের রিমান্ডে নিয়ে সাবরিনাকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করা হয়েছে। তিনি কিভাবে প্রতারণার ফাঁদ পেতে করোনার নমুনা পরীক্ষা ছাড়াই ভুয়া সনদ দিতে সে বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছেন। 

করোনার পরীক্ষার রিপোর্ট জালিয়াতির মামলায় গতকাল সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ডা. সাবরিনাকে আদালতে নিয়ে ৪ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন মামলার তেজগাঁও থানার তদন্ত কর্মকর্তা। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শাহিনুর রহমান ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে একই অভিযোগে গত ২৩ জুন হেলথকেয়ারের প্রধান নির্বাহী আরিফুল হক চৌধুরীকে গ্রেফতার করা হয়। তিনি বর্তমানে কারাগারে আছেন। ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরীর চতুর্থ স্ত্রী। যদি সাবরিনার দাবি, সম্প্রতি তাদের ছাড়াছাড়ি হয়ে গেছে। 

ট্যাগ: bdnewshour24