banglanewspaper

‘দিল বেচারা’ ছবির শুটিং চলাকালীন অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের বিরুদ্ধে মিটু অভিযোগ উঠেছিল। সেই সময় খবর ছড়িয়েছিল যে ছবির অভিনেত্রী সঞ্জনা সঙ্ঘী সুশান্তের আচরণের জন্য তার বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগ এনেছেন। যদিও পরে প্রমাণিত হয় যে সেই অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা। কিন্তু তার জন্য প্রচুর কাঠ খড় পোড়াতে হয়েছিল সুশান্তকে।

২০১৮ সালে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত হয় যে, দিল বেচারা ছবির অভিনেত্রী সঞ্জনা সঙ্ঘী নাকি যৌন হেনস্থার অভিযোগ এনেছেন সুশান্তের বিরুদ্ধে। সেই সময়ে সঞ্জনা পরিবারের সঙ্গে বেড়াতে গিয়েছিলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। আর তাই তখন তার বয়ান পাওয়া যাচ্ছিল না।

আর সেই সুযোগে এদিকে সুশান্তকে ধর্ষক, স্কার্ট চেজার, মলেস্টার ইত্যাদি দেওয়া হচ্ছিল। এইসব থেকে নিস্তার পেতে অবশেষে সঞ্জনার সঙ্গে চ্যাট এর স্ক্রিনশট শেয়ার করতে বাধ্য হয়েছিলেন প্রয়াত অভিনেতা।

এই প্রসঙ্গে পিংকভিলার কাছে সঞ্জনা বলেছেন, “সবাই ভেবেছিল সে সময় সুশান্ত শুধু সমস্যার মধ্যে পড়েছিল। কিন্তু আমিও তখন সমস্যায় জর্জরিত ছিলাম। আমরা আমাদের সত্যিটা জানতাম। আমি জানতাম ও আমার কাছে কতটা গুরুত্বপূর্ণ ছিল এবং সুশান্তও জানতো ও আমার কাছে কতটা গুরুত্বপূর্ণ ছিল। এর চেয়ে বেশি বড় আর কী হতে পারে। আমরা সেটে রোজ শুটিং করতাম। একটা দুটো এরকম খবর বের হতো। কিন্তু সব গুজবে তো কান দেওয়া যায় না। তাই বিষয়গুলিকে এড়িয়ে চলতাম।”

সেই সময়ে সুশান্তের সম্পর্কে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে নানা রকমের খারাপ কথা লেখা হয়েছিল। এগুলোর প্রতি কোনো সম্মান নেই বলেও জানিয়েছেন সঞ্জনা। তিনি বলছেন, “আমাদের মধ্যে কোনো কিছুর পরিবর্তন হয়নি। কারণ আমাদের মধ্যে আলাদা করে কিছু ছিল না। আমরা শুধু ভাবতাম সত্যিটা কিভাবে প্রমাণ করব।

ভাবুন দুটো মানুষ যারা পরস্পরকে শ্রদ্ধা করে, তারা শুধু বসে ভাবছিল, ‘আমরা প্রমাণ করব কিভাবে?’ সুশান্ত বলেছিল আমাদের ব্যক্তিগত চ্যাটের স্ক্রিনশট শেয়ার করবে। আমি সম্মতি জানিয়ে ছিলাম। কিন্তু চ্যাটের স্ক্রিনশট শেয়ার করার পরেও মানুষ বিশ্বাস করেনি। তারপর আমি নিজে, যে নাকি ‘অভিযোগকারিণী’, সমস্তটা বুঝিয়ে বলার চেষ্টা করি জনসমক্ষে। কিন্তু তাতেও কোনো কাজ হয়নি।”

সেই সময়ে কেন বিষয়টি খোলসা করতে সময় নিয়েছিলেন তাও জানিয়েছেন সঞ্জনা। তিনি বলছেন, “লোকে বিষয়টা সময় হিসেবে দেখে। কিন্তু তারা আমাদের বাস্তবটা জানে না। যে কোনো মিথ্যের জন্য আমাদের ব্যাখ্যার অপেক্ষা করে তারা। আর আমি সেই অভ্যেসে আস্কারা দিতে চাইনা। আমার ব্যাপারে কোনও গুজব লেখা হলেই আমাকে সহকর্মীদের কাছে এসে তার ব্যাখ্যা দিতে হবে এমন অবস্থায় আমি থাকতে চাই না।”

সঞ্জনা আরো বলছেন, “আমার মনে হয় নি তখন যে আমার ব্যাখ্যা দেওয়া উচিত। কারণ কিছুই তো হয়নি। ও অসাধারণ একজন অভিনেতা ছিল। ওর প্রতি আমার অগাধ ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা রয়েছে। আর সত্যিই কিছু ঘটে থাকলে আমরা প্যারিসে গিয়ে আমাদের শুটিং শেষ করতাম না। আমি মানুষকে অনুরোধ করবো সত্যকে বিশ্বাস করার জন্য। খুব দুঃখজনক যে তাদের কাছে সত্যিটা পৌঁছানো হয় না। এটা মানুষের দোষ না।”

২০১৮-য় তার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের পর সুশান্ত স্ক্রিনশট শেয়ার করেছিলেন এবং পরিষ্কার করে দিয়েছিলেন যে সমস্ত অভিযোগ মিথ্যে। সঞ্জনাও সেই সময় স্পষ্ট করেছিলেন তিনি এমন কোনও অভিযোগ আনেননি তার সহ-অভিনেতার বিরুদ্ধে। কারন এমন কিছু ঘটেনি। তাদের মধ্যে যথেষ্ট সুসম্পর্ক বজায় রয়েছে।

ট্যাগ: bdnewshour24