banglanewspaper

রাসায়নিকের গুদাম থেকে লেবাননের রাজধানী বৈরুত বন্দরের ভয়াবহ বিস্ফোরণ নগরীর বিরাট এলাকা ধ্বংসস্তুপে পরিণত করেছে। সেই সঙ্গে এই বিস্ফোরণে বন্দরে ৪৩ মিটার (১৪১ ফুট) গভীর গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। বন্দরে মজুত বিপুল পরিমাণ অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট থেকেই এ বিস্ফোরণ হয়।

বন্দরের বিধ্বস্ত এলাকায় ফ্রান্সের বিশেষজ্ঞদের সমীক্ষার রিপোর্ট তুলে ধরে এক কর্মকর্তা এএফপিকে বলেন, মঙ্গলবারের “বিস্ফোরণ বন্দরে ৪৩ মিটার গভীর খাদ রেখে গেছে।”

এদিকে মঙ্গলবারের ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিক্ষোভ করার এক পর্যায়ে কয়েকটি মন্ত্রণালয়ে হামলা চালিয়েছেন বিক্ষোভকারীরা।

কয়েক হাজার মানুষ রাজপথে নেমে বিক্ষোভ করার সময় পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে। পরে পুলিশও বিক্ষোভকারীদের দিকে পাল্টা টিয়ার গ্যাস ছোড়ে। দেশটির কেন্দ্রীয় শহীদ চত্বর থেকেও গুলির শব্দ শোনা যায়।

এছাড়া সরকারের ব্যর্থতার দায়ভার নিয়ে দেশটির তথ্যমন্ত্রী ও পরিবেশমন্ত্রী পদত্যাগ করেছেন।

টেলিভিশনে দেয়া ভাষণে লেবাননের প্রধানমন্ত্রী হাসান দিয়াব বলেছেন, তিনি সঙ্কট থেকে বেরিয়ে আসার উপায় হিসাবে দ্রুত নির্বাচন চাইবেন। ‘আমরা দ্রুত পার্লামেন্ট নির্বাচন না করে দেশের কাঠামোগত সঙ্কট থেকে বেরিয়ে আসতে পারবো না,’ তিনি বলেন। সোমবার মন্ত্রিসভায় বিষয়টি নিয়ে আলোচনার কথা রয়েছে।

মঙ্গলবারের ওই বিস্ফোরণে কমপক্ষে ১৫৮ নিহত হয়েছিলেন। দুই হাজার ৭০০ টন অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট সংরক্ষণের গুদামে বিস্ফোরণ প্রতিরোধে ব্যর্থ হওয়ায় ক্ষুব্ধ বহু লেবানিজ নাগরিক। এই বিপুল পরিমাণ অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট ছয় বছর আগে একটি জাহাজ থেকে জব্দ করা হয়েছিল তবে কখনও স্থানান্তর করা হয়নি। সরকার দায়ীদের খুঁজে বের করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

বন্দরের এই বিস্ফোরণ শহরের একটি অংশ ধ্বংস করে দিয়েছে, যা সরকারের প্রতি মানুষের অবিশ্বাসকে আরো গভীর করে তোলে। এই সরকারের বিরুদ্ধে আগে থেকেই অদক্ষতা ও দুর্নীতির অভিযোগ ছিল। দেশটিতে অর্থনৈতিক সঙ্কট এবং মুদ্রা সঙ্কট নিয়ে গত অক্টোবর থেকে সরকারবিরোধী আন্দোলন চলছিল।

ট্যাগ: bdnewshour24