banglanewspaper

ক্যানসার শরীরকে কতখানি যন্ত্রণা দেয়, তা খুব ভাল জানেন যুবরাজ সিং। কতটা ভিতর থেকে এই মারণ কর্কটরোগ শরীরকে ক্ষত-বিক্ষত করে দেয়, সেই ব্যথা অনুভব করার অভিজ্ঞতা রয়েছে তার। তাই সঞ্জয় দত্তের খবরটা পেয়েই বুকের ভিতরটা যেন ফাঁকা হয়ে গিয়েছিল ভারতের এককালের সেরা অলরাউন্ডারের।

তবে যুবির বিশ্বাস সঞ্জয় দত্ত একজন যোদ্ধা। তিনি ঠিক ঘুরে দাঁড়াবেন। আর সেই কামনা করেই সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি আবেগঘন পোস্ট করেন তিনি।

মঙ্গলবার রাতেই আসে খবর। ফুসফুসে ক্যানসার ধরা পড়েছে সঞ্জুবাবার। তাও আবার স্টেজ থ্রি। চিকিৎসার জন্য উড়ে যাবেন মার্কিন মুলুকে। অভিনেতার অসুস্থতার খবরে মন খারাপ অনুরাগীদের। কারণ ঠিক তার আগের দিনই হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরে স্বস্তি দিয়েছিলেন।

জানিয়েছিলেন, শ্বাসকষ্টর জন্য ভরতি হতে হয়েছিল। করোনা টেস্টও হয়েছে। রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। তাই আপাতত সুস্থ তিনি। তবে ২৪ ঘণ্টা যেতে না যেতেই সঞ্জু নিজেই পোস্ট করে জানিয়ে দেন, চিকিৎসার জন্য তিনি অভিনয় থেকে বিরতি নিচ্ছেন। তখনও জানা যায়নি কী হয়েছে তার। তারপরই সত্যিটা সামনে আসে। ক্যান্সার বাসা বেঁধেছে তার শরীরে।

এমন সংবাদ কানে যেতেই টুইট করে তার দ্রুত আরোগ্য কামনা করেন যুবি। তিনি লেখেন, “আপনি একজন যোদ্ধা ছিলেন, আছেন ও থাকবেন। আমি জানি এটা ঠিক কতটা যন্ত্রণাদায়ক। কিন্তু এও জানি যে আপনার মন যথেষ্ট শক্ত। কঠিন সময় ঠিক কমে যাবে। আমার প্রার্থনা আর শুভেচ্ছা রইল।”

সালটা ছিল ২০১১। বিশ্বজয়ী ভারতীয় দলের টুর্নামেন্ট সেরা যুবরাজ সিং। ঠিক তারপরই আগে দুঃসংবাদ। বাঁ-দিকে ফুসফুসে টিউমার ধরা পড়ে তার। চিকিৎসক জানান ক্যানসারের কবলে যুবি। পরের বছর চিকিৎসা করাতে চলে যান বোস্টনে। দীর্ঘ চিকিৎসার পর ক্যানসারকে জয় করে বাড়ি ফেরেন। শুধু তাই নয়, আত্মবিশ্বাসে ভর করে জাতীয় দলে কামব্যাকও করেন যুবি। তাই তার বিশ্বাস, সঞ্জয় দত্তও পারবেন এই মারণ রোগকে হারাতে। পারবেন ফের স্বমহিমায় সঞ্জুবাবা হিসেবে ধরা দিতে।

ট্যাগ: bdnewshour24