banglanewspaper

রাশিয়ার তৈরি করোনার সম্ভাব্য টিকা কতটা নিরাপদ ও কার্যকর হতে পারে, তা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ অ্যান্টনি ফাউচি ‘চরম সংশয়’ প্রকাশ করেছেন। গতকাল মঙ্গলবার রুশ সরকার মানবদেহে পরীক্ষা ছাড়াই তড়িঘড়ি করে করোনা ভাইরাসের ওই টিকা ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে।

সিএনএনের এক প্রতিবেদনের বরাতে জানা যায়, ফাউচি বলেছেন, ‘আশা করি রুশরা টিকার নিরাপত্তা ও কার্যকারিতা প্রমাণ করতে পেরেছে। তবে আমার সন্দেহ, তারা যথেষ্ট গুরুত্বের সঙ্গে তা করতে পেরেছে কি না।’ 

গত বৃহস্পতিবার ন্যাশনাল জিওগ্রাফিকে সম্প্রচারের জন্য এবিসি নিউজের দেবোরাহ রবার্টসের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। ওই সাক্ষাৎকারের একটি অংশ গতকাল ন্যাশনাল জিওগ্রাফিকে পোস্ট করা হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের অ্যালার্জি ও সংক্রামক রোগবিষয়ক জাতীয় ইনস্টিটিউটের পরিচালক ফাউচি বলেন, টিকা থাকা আর টিকা নিরাপদ ও কার্যকর হওয়া দুটি আলাদা জিনিস। 

তিনি বলেন, ‘আমাদের এক ডজনের অর্ধেক বা তারও বেশি টিকা আছে। আমরা যদি মানুষকে অকার্যকর কিছু দিতে চাই, তাহলে সে সুযোগ রয়েছে। চাইলে এমনভাবে আমরা আগামী সপ্তাহেই টিকা আনতে পারি। তবে কাজটা এভাবে করা ঠিক হবে না।’

এ ব্যাপারে ফাউচি আরও বলেন, মার্কিনরা যখন রাশিয়া বা চীনের মতো দেশ থেকে টিকা উন্নয়নের ঘোষণা শুনবে, তাদের মনে রাখতে হবে, যুক্তরাষ্ট্রকে নিরাপত্তা ও কাজের মান বজায় রেখে চলতে হয়। রাশিয়ার টিকার উৎপাদনকারীরা মানুষের ট্রায়ালের জন্য কোনো তথ্য প্রকাশ করেনি।

যদিও যুক্তরাষ্ট্রের খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসন (এফডিএ) বলছে, ৫০ ভাগ প্রয়োজন পূরণ করতে পারলে তারা ওই টিকা অনুমোদন করবে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা গতকাল এক মেইল বিবৃতিতে জানায়, তারা রুশ বিজ্ঞানী ও কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে। তারা টিকার ট্রায়ালের পর্যালোচনা চেয়েছে।

আলোচিত এই ভ্যাকসিনের নিয়ে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন, তার দেশই প্রথম করোনার টিকা তৈরি করেছে। পুতিন করোনার টিকা সম্পর্কে বলেন, রাশিয়া যে টিকা তৈরি করেছে, তা স্থায়ী বা টেকসই প্রতিরোধী সক্ষমতা দেখাতে সক্ষম। টিকা তার এক মেয়ের শরীরেও দিয়েছেন বলেও জানিয়েছেন পুতিন।

রাশিয়ায় অনুমোদন পেতে যাওয়া টিকাটি যৌথভাবে তৈরি করেছে দেশটির গামেলিয়া রিসার্চ ইনস্টিটিউট ও দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। টিকাটি এতে নিরাপদ হিসেবে প্রমাণিত হলে তা স্বাস্থ্যকর্মী ও দেশের জ্যেষ্ঠ নাগরিকদের প্রথমে প্রয়োগ করা হবে। নিবন্ধন দেওয়ার পর টিকাটি আরও ১ হাজার ৬০০ মানুষের ওপর প্রয়োগ করে এর নিরাপত্তা ও কার্যকারিতা নিশ্চিত করা হবে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, করোনা সম্ভাব্য ছয়টি ভ্যাকসিন মানবদেহে পরীক্ষার তৃতীয় ধাপে রয়েছে।

ট্যাগ: bdnewshour24