banglanewspaper

মানুষের সবচেয়ে সুন্দরতম সম্পদ হল মানবতা। পর্নোগ্রাফি তারকা মিয়া খলিফার জন্ম লেবাননের বৈরুতে। বেড়ে ওঠার অনেক বড় সময় কেটেছে আমেরিকায়। পর্ন স্টার হওয়ার অপরাধে লেবাননে প্রবেশের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে তার বিরুদ্ধে।  আইএস থেকে দেওয়া হয়েছে প্রাননাশের হুমকি।  মুসলিম দুনিয়ার অধিকাংশ মানুষ তাকে ঘৃণার চোখে দেখে। 

এতো কিছুর পরেও বৈরুতের এই দুর্দিনে তিনি পাশে দাড়ালেন লেবানিনদের। গত ৫ আগস্ট বৈরুতে ভয়াবহ মারাত্মক বিস্ফোরণের পরে বহু সুশীল, বহু জ্ঞানী, গুনী পাশ কাটিয়ে গেলেও পাশ কাটিয়ে যাননি মিয়া খলিফা। সাহায্যের থালি নিয়ে তিনি দাড়িয়েছেন তার জন্মভূমির পাশে। 

তার সুবিখ্যাত চশমা যেটি তাকে সার্বক্ষণিক ব্যবহার করতে দেখা যায় সেই চশমাটি তিনি নিলামে তুলেছেন। মাত্র ১২ ঘন্টার মধ্যে বিড উঠেছে এক লক্ষ ডলারের অধিক। এই পুরো অর্থই তিনি বৈরুতের জনগণের কল্যাণে রেড ক্রিসেন্টের মাধ্যমে প্রেরণ করবেন। নিঃসন্দেহে এটা একটি অসাধারণ উদ্যোগ।

প্রাক্তন পর্নস্টার মিয়া খলিফাকে বেশিরভাগ নীল ছবিতেই এই চশমা পরে দেখা গিয়েছে। তিনি ইনস্টাগ্রামে লিখেছেন, ‘আমি শুধু সৃজনশীল হওয়ার চেষ্টা করছি। অনেকে অনেকভাবে ত্রাণ সংগ্রহ করতে পারেন। তবে চাই না এই বিপর্যয়ের সময় আলোচনাটা অন্যদিকে ঘুরে যাক।’

২০১৫ সালে তিন মাসের মধ্যে ১১টি পর্নোগ্রাফিতে দেখা গিয়েছিল মিয়া খলিফাকে। যার মধ্যে হিজাব পরে একটি নীল ছবি ঝড় তুলেছিল গোটা বিশ্বে। কট্টরপন্থীরা যে ভিডিও প্রকাশ্যে আসার পর মিয়াকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়। পরে মিয়া জানিয়েছিলেন, পর্ন ইন্ডাস্ট্রিটে পা রেখে তিনি অনুতপ্ত ছিলেন। তার পরিবারকেও সেই সময় তিনি পাশে পাননি। তবে ২০১৫ সালের পর থেকে আর পর্নোগ্রাফিতে দেখা যায়নি তাঁকে।

ট্যাগ: bdnewshour24