banglanewspaper

চীনের সঙ্গে পাকিস্তানের সখ্যতা বা গভীর বন্ধুত্ব নতুন কিছু নয়। পাকিস্তান সবসময়ই চীনের বন্ধু। এমনকি চীনের কারণে দেশটি পুরনো বন্ধু সৌদির সাথেও কথার লড়াই করেছে। আর ভারত-পাকিস্তান তো চিরকালই পারস্পরিক বিরোধিতার রাস্তায় হেঁটে নিজেদের রাজনৈতিক অস্তিত্বকে টিকিয়ে রেখেছে। আবার বিস্তারবাদের টার্গেট হিসাবে ভারতকে চিরকাল দেখে এসেছে চীন। এবার এই দুই দেশ জলপথে জোট বাঁধছে। তাও সেটা ভারতীয় জলসীমান্তের অদূরেই।

ভারতীয় উপকূলের অদূরে এক পাকিস্তানি সাবমেরিনের সঙ্গে চীনের একটি যুদ্ধ জাহাজ দেখা গিয়েছে। এ কথা জানিয়েছে মার্কিন সাময়িকী ফোর্বসের সাম্প্রতিক রিপোর্ট। এর দ্বারা বোঝা যাচ্ছে, এবার জলপথে নিজের শক্তি সঞ্চয় করে পাকিস্তান চীনের সঙ্গে জলসীমায় নতুন পথে হাঁটতে পারে।

বেসরকারি এক সংস্থার স্যাটেলাইট ছবিতে ধরা পড়েছে পাকিস্তানের করাচির কাছে জলপথে চীন ও পাকিস্তান দুই দেশ একসঙ্গে সেনা মহড়ায় অংশ নিয়েছে। গত জানুয়ারি মাসেও তারা এই সেনা মহড়া দিয়েছিল। আর গোটা পরিস্থিতির গতিবিধির দিকে নজর রাখতে শুরু করে দিয়েছে দিল্লি।

এছাড়া চীনের তৈরি টাইপ ০৩৯-বি ইউয়ান যুদ্ধজাহাজ এবার পাকিস্তান নিজের সেনাবহরে অন্তর্ভূক্ত করেছে। ফলে বেজিং ইসলামাবাদ যে একই রাস্তায় হেঁটে নিজের সমরসজ্জা জোটবদ্ধভাবে পোক্ত করছে, তা বলাই বাহুল্য!

পাকিস্তানের সংবাদপত্রে চীনের সঙ্গে পাকিস্তানের যৌথ মহড়ার কথা বলা হলেও, সাবমেরিনের বিষয়টি চেপে যাওয়া হচ্ছে। সাধারণত যেখানে সাবমেরিন নিয়ে পাকিস্তান মহড়ায় নামে, সেই জলপথ উপেক্ষা করে অন্য একটি জলপথ ঘিরে ফেলে সেখানে চুপিসারে পাকিস্তান এই মহড়া দিয়েছে।

জানা গিয়েছে, পাকিস্তানের এই গোপন সাবমেরিনগুলিতে অ্যান্টি শিপ মিসাইল থাকছে। পাকিস্তানের অন্দরমহলের দাবি এই সাবমেরিন অত্যন্ত শক্তিশালী। দেশটির বাবর-৩ মিসাইল সিস্টেম এর সঙ্গে সংযুক্ত।

ট্যাগ: bdnewshour24