banglanewspaper

জিমনাস্টিক ডি তারাঙ্গোনার বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচে ৩-১ গোলের জয় পেয়েছে বার্সেলোনা। জিতলেও কোচ রোনাল্ড কোম্যানের কপালে চিন্তার ভাঁজ। ৩ গোলের বিপরীতে শিষ্যরা দ্বিতীয় সারির এক দলের বিপক্ষে একটি গোল হজম করে বসেছে! তাই নতুন কৌশলের দ্বারস্থ হওয়ার ইঙ্গিত ডাচ কোচের। প্রথাগত আক্রমণের সঙ্গে রক্ষণকে আরও শক্তিশালী করতে চান।

আগের দুই কোচ আর্নেস্টো ভালভার্দে ও কিকে সেতিয়েনের আমলে ৪-৩-৩ ফর্মেশনে খেলে অভ্যস্ত বার্সা। চিরকাল আক্রমণকেই ভরসা মেনে আসা দলটা মূলত এই ফর্মেশনেই সাজে। অনেকদিন বাদে ৪-২-৩-১ ফর্মেশনে বার্সাকে খেলিয়েছেন কোম্যান। শনিবার রাতে ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধে মেসিদের নতুন ঢংয়ে খেলিয়েছেন তিনি।

২০১৯ সালের নভেম্বরের পর মাঠে নেমেছিলেন ফরাসি উইঙ্গার উসমানে ডেম্বেলে। পাঁচ মিনিটে তার গোলে এগিয়ে যায় কাতালান ক্লাবটি। ১৬ মিনিটে অ্যান্টনিও গ্রিজম্যানের পেনাল্টিতে দ্বিতীয় গোল। তৃতীয় গোলও পেনাল্টি থেকে, বায়ার্ন মিউনিখের হয়ে ধারে খেলা শেষে বার্সায় ফিরে গোল করেছেন ফিলিপে কৌতিনহো।

প্রীতি ম্যাচ বলেই ইচ্ছামতো খেলোয়াড় পরিবর্তন করেছেন কোম্যান, সবমিলিয়ে ১১বার। প্রথমবারের মতো মূল দলের হয়ে মাঠে নেমেছেন একাডেমি থেকে উঠে আসা ১৭ বছর বয়সী ফরোয়ার্ড পেদ্রি, নতুন সাইনিং ফ্রান্সিস্কো ত্রিনকাও ও রিজার্ভ দলের আমেরিকান ফরোয়ার্ড কনরার্ড ডে লা ফুয়েন্তে।

ম্যাচের শুরুর ৪৫ মিনিটে হোল্ডিং মিডফিল্ডার হিসেবে খেলেছেন সার্জিও বুস্কেটস ও কার্লেস অ্যালেনা। পরে ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ং ও রিকি পুইকে দিয়ে দুজনকে পাল্টেছেন কোম্যান। তার মূল পরিকল্পনা যথাসম্ভব আক্রমণে বৈচিত্র্য আনা।

কোম্যান নিজেই ম্যাচ শেষে ক্লাবের অফিসিয়াল টিভিকে জানিয়েছেন যে নতুন মৌসুমে পাল্টে যাবে বার্সার চিরন্তন খেলার ধরণ, ‘গত কয়েক বছরে ক্লাব যা খেলেছে নতুন কৌশল হবে তার থেকে খানিকটা আলাদা ও রক্ষণাত্মক। তবে আসল কৌশল হচ্ছে বলকে জায়গায় না রেখে সামনে এগিয়ে যাওয়া এবং প্রতিপক্ষ মিডফিল্ডারের পা থেকে বল কেড়ে নিয়ে খানিকটা জায়গা বের করা। আমার মনে হয় দল এই কৌশলে মানিয়ে নিতে পারবে দল, কারণ দলে বেশ কয়েকজন মিডফিল্ডার আছে।’

শনিবার থেকে শুরু হয়েছে ২০২০-২১ লা লিগা মৌসুম। তবে বার্সা মাঠে নামবে আরও দুই সপ্তাহ পর। ২৭ সেপ্টেম্বর ভিয়ারিয়ালের বিপক্ষে তাদের প্রথম ম্যাচ। এর আগে বুধবার জিরোনার বিপক্ষে আরেকটি প্রস্তুতি ম্যাচ আছে মেসিদের।

ট্যাগ: bdnewshour24