banglanewspaper

বায়ু দূষণের কারণে মারা যাওয়ার ঝুঁকি করোনা ভাইরাসের থেকেও বেশি। হাঁপানি সমস্যা বাড়িয়ে তোলা থেকে শুরু করে অন্যান্য শ্বাসকষ্টজনিত রোগকে কার্ডিওভাসকুলার রোগে পরিণত করে। এ কারণেই ফুসফুস ভালো রাখতে আরও বেশি যত্নশীল হতে হবে। আর সেজন্য নির্দিষ্ট কিছু খাবার এ সমস্যার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে সহায়তা করে। টাইমস অব ইন্ডিয়া এমন খাবারের একটি তালিকা প্রকাশ করেছে, যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এবং বায়ু দূষণজনিত সংক্রমণের ঝুঁকি হ্রাস করতে সহায়তা করবে।

আদা
সর্দি বা কাশি হলে আদা খাবেন। কেননা এটি প্রদাহ বিরোধী গুণাবলীর জন্য পরিচিত। শ্বাসনালী থেকে বিষাক্ত পদার্থ অপসারণ করতে সহায়তা করে। প্রতিদিন চা, সালাদ ও তরকারি ইত্যাদিতে আদা যোগ করে খেতে পারেন। 

হলুদ
হলুদের সক্রিয় যৌগ ফুসফুসকে প্রাকৃতিকভাবে পরিস্কার করে। এছাড়া শ্বাসকষ্টজনিত অসুস্থতার কারণে প্রদাহ এবং শ্লেষ্মা দূর করে। আদা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করতে এবং শরীরকে ডিটক্সাইফাই করতে সহায়তা করে। 

মধু
আমরা সবাই মধুর গুণাগুণ সম্পর্কে জানি। এটি শ্বাসকষ্টের সমস্যা দূর করে। নিশ্বাস পরিস্কার করতে এবং ফুসফুসের স্বাস্থ্য বজায় রাখতে সাহায্য করে। এছাড়া এটি সর্দি-কাশি থেকেও মুক্তি পেতে সহায়তা করে।

রসুন
রসুনও শ্বাস প্রশ্বাসের সংক্রমণ নিরাময়ে সাহায্য করে। কেননা অ্যালিসন নামক একটি শাক্তিশালী যৌগ রয়েছে যা অ্যান্টিবায়োটিক এজেন্ট হিসেবে কাজ করে যার ফলে শ্বাস প্রশ্বাসে সমস্যা হয় না। হাঁপানি রোগীদের জন্য রসুন বেশি কার্যকরী।

গ্রিন-টি
গ্রিন-টি স্বাস্থ্য উপকারীতার কথা সবাই জানি। এটি ওজন কমানো থেকে শুরু করে প্রদাহ কমানো সব করে থাকে। এছাড়া ফুসফুসের অবস্থাও উন্নতি হয় নিয়মিত গ্রিন-টি খেলে।

ট্যাগ: bdnewshour24