banglanewspaper

আওয়ামী লীগ নয়, ক্ষমতার ফেরার জন্য বিএনপিই বিদেশি শক্তির কাছে জাতীয় স্বার্থ বিসর্জন দিচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

‘ক্ষমতা টিকিয়ে রাখতে বিদেশি শক্তির কাছে জাতীয় স্বার্থ বিসর্জন দিচ্ছে সরকার’- বিএনপি নেতাদের এমন মন্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় সোমবার (২৮ ডিসেম্বর) নিজ সরকারি বাসভবনে নিয়মিত ব্রিফিংয়ে বিএনপিকেই উল্টো দোষারোপ করেন তিনি। 

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘প্রকৃতপক্ষে দেশের মানুষ জানে; কারা ক্ষমতায় যেতে বিদেশি দূতাবাসের দরজায় ফুল আর মিষ্টি নিয়ে অপেক্ষা করে। কারা ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য বিদেশি সংস্থার কাছে প্রকাশ্য দিবালোকে নৈতিক সাহায্য প্রার্থনা করে।’

‘আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে এদেশের স্বাধীনতা এসেছে, দেশের প্রতি ইঞ্চি মাটি শেখ হাসিনা সরকারের কাছে নিজ অস্তিত্বের মতো’ বলেও জানান ওবায়দুল কাদের। 

এসময় করোনা টিকা প্রসঙ্গে সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘করোনা টিকা সংগ্রহ এবং ব্যবস্থাপনার বিষয়টি সুচারুভাবে সম্পন্ন করতে পূর্বপ্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে। এ বিষয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কাজ করছে এবং দেশবাসীকে অবহিত করছে। একটি মহল সরকারের যে কোনও ভালো উদ্যোগের অহেতুক সমালোচনায় সক্রিয়। টিকা এখনেও আসেইনি, এর মধ্যেই বিভ্রান্তি শুরু করেছে সেই মতলবি মহল।’  

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক দেশবাসীকে এসকল উদ্দেশ্যমূলক অপপ্রচারে বিভ্রান্ত না হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘করোনার টিকা সংগ্রহে ইতোমধ্যেই উদ্যোগ নিয়েছে সরকার।  জানুয়ারির শেষ সপ্তাহ কিংবা ফেব্রুয়ারিতে টিকা দেশে এসে পৌঁছবে।’

আন্তর্জাতিক সংস্থাসমূহকে রোহিঙ্গা নাগরিকদের প্রত্যাবাসনে মিয়ানমারের ওপর চাপ সৃষ্টির কার্যকর কৌশল অবলম্বনের আহ্বান জানান ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, ‘রোহিঙ্গা সংকটের শুরু থেকে শেখ হাসিনা সরকার বিষয়টির শান্তিপূর্ণ সমাধানে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহযোগিতা কামনা করে আসছে; কূটনৈতিক তৎপরতাও অব্যাহত রেখেছে। প্রায় ১২ লাখ রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী টেকনাফ-উখিয়ায় আশ্রয় নেয়ায় তাদের ভরণপোষণে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে প্রবল চাপ সৃষ্টি হচ্ছে, ক্ষতি হচ্ছে প্রাকৃতিক পরিবেশের।’ 

ধারণক্ষমতার কম জায়গায় অধিকসংখ্যক মানুষ বসবাস করায় ‘সামাজিক পরিবেশ ও ভারসাম্য’ হুমকির মুখে পড়েছে উল্লেখ করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘এ অবস্থায় মানবিক ও পরিবেশ বিপর্যয়ের আশংকা দেখা দিয়েছে। বিশ্বের দীর্ঘতম বালুকাময় সৈকত ঘিরে পর্যটন শিল্পের ওপরও নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘মিয়ানমারের প্রত্যাবাসন বিলম্বিত হওয়ায় সরকার ভাসানচরে অধিকতর সুযোগ-সুবিধা দিয়ে রোহিঙ্গাদের স্থানান্তরের উদ্যোগ নিয়েছে। এমতাবস্থায় যারা ইতোমধ্যে ভাসানচরে গিয়েছে, তারা স্বস্তি প্রকাশ করলেও কোনও কোনও আন্তর্জাতিক সংস্থা ও বহুজাতিক গণমাধ্যম রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে জোরপূর্বক স্থানান্তরের কথা প্রচার করছে, যা সত্য নয়।’

তিনি বলেন, ‘যারা স্বেচ্ছায় যেতে চেয়েছে কেবলমাত্র তাদেরকেই স্থানান্তর করা হচ্ছে। কোনও ধরনের চাপ প্রয়োগ করে নয়।’

ট্যাগ: bdnewshour24