banglanewspaper

জঙ্গিবাদ দমনে সৃষ্টিলগ্ন থেকে কাজ করে যাচ্ছে বাংলাদেশ পুলিশের এলিট ফোর্স র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)। শুধুমাত্র দমন নয়, পথভ্রষ্ট জঙ্গিদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনতেও কাজ করে যাচ্ছে র‍্যাব। সর্বশেষ গত বৃহস্পতিবার, বিভ্রান্ত মতাদর্শ, মত ও পথ জঙ্গিবাদ ছেড়ে র‍্যাবের সহায়তায় আনুষ্ঠানিকভাবে আলোর পথে ফিরেছেন ৯ জঙ্গি।

এরই ধারাবাহিকতায় পথভ্রষ্ট জঙ্গিদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনতে নতুন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে র‍্যাব। জঙ্গিদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনতে র‍্যাব চালু করেছে নতুন একটি হটলাইন। হটলাইনের ই-মেল ও ফোন নম্বরের মাধ্যমে র‍্যাবের সঙ্গে যোগাযোগ করে পলাতক জঙ্গিরা আত্মসমর্পণের সুযোগ পাবেন। এরপর তাদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনতে কাজ করবে র‍্যাব।

হটলাইনের ই-মেইল আইডি- rabintdir@gmail.com. আর হটলানের ফোন নম্বরটি দ্রুত সময়ের মধ্যে দেয়া হবে বলে র‍্যাব থেকে জানানো হয়।

সোমবার (১৮ জানুয়ারি) রাতে র‍্যাব সদর দফতরের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আশিক বিল্লাহ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, আমাদের হটলাইনটি আজ থেকে শুরু হচ্ছে। জঙ্গিদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনতে আজ চালু হচ্ছে র‍্যাবের হট লাইন। এ হটলাইনের মাধ্যমে পলাতক জঙ্গিরা র‍্যাবের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ করলে তাদের প্রথমে আত্মসমর্পণের সুযোগ দেয়া হবে। এরপর তাদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনার পদক্ষেপ নেয়া হবে।

তিনি বলেন, গত সপ্তাহে ৯ জন জঙ্গি স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে আমাদের কাছে আত্মসমর্পণ করেছে। জঙ্গিদের আত্মসমর্পণের জন এই হটলাইন নতুন আঙ্গিকে চালু করা হয়েছে। যারা পথভ্রষ্ট হয়ে জঙ্গিবাদের দিকে চলে গেছেন, তাদের মধ্যে এখন যারা মনে করছেন তারা ভুল সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তারা এখন জঙ্গিবাদের পথ ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে চান পরিবারের কাছে তাদের জন্য এই হটলাইন। তাদের নাম-পরিচয় গোপন রেখে আমাদের সঙ্গে তারা হটলাইনে যোগাযোগ করতে পারবেন। পথভ্রষ্টদের আমরা সুযোগ দিতে চাই আত্মসমর্পণ করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার জন্য।

এর আগে বৃহস্পতিবার (১৪ জানুয়ারি) দুপুরে রাজধানীর কুর্মিটোলা র‍্যাব সদর দফতরে ‘নব দিগন্তের পথে’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে ৯ জঙ্গি আত্মসমর্পণ করনে। আত্মসমর্পণ করা জঙ্গিদের মধ্যে ৬ জন জেএমবির এবং ৩ জন আনসার আল ইসলামের সদস্য ছিলেন।

অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছিলেন, উন্নয়নের রোল মডেলের পাশাপাশি জঙ্গিবাদ দমনেও বাংলাদেশ এখন রোল মডেল। চরমপন্থি বা জলদস্যু যারাই স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে চেয়েছে তাদের সুযোগ দেয়া হয়েছে। পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। যারা বিভ্রান্ত হয়েছিল, পথ হারিয়েছিল, ভুল আদর্শ বুকে নিয়েছিল, তারা আজ বাবা মায়ের কাছে ফিরেছেন। তাদের মুখে হাসি ফুটিয়েছেন যা অনেক দিন পর দেখছি। দেশের মানুষ এ দৃশ্য দেখবে। এজন্য র‌্যাবকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি, এ প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ আত্মসমর্পণ করা জঙ্গিদের উদ্দেশ্যে বলেন, যারা সমাজের মূলধারায় ফিরে এসেছে, তাদেরকে অভিনন্দন জানায়। তোমরা আলোর পথের অভিযাত্রী, এটা দুঃসাহসিক কাজ। এজন্য তোমাদের অভিনন্দন। জঙ্গিদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনার এই ধারা বাংলাদেশই প্রথম চালু করেছে।

সভাপতির বক্তব্যে র‍্যাবের মহাপরিচালক (ডিজি) চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, যারা আজ সমাজের মূলধারায় ফেরার জন্য আত্মসমর্পণ করেছেন, তাদেরকে এই সমাজ যেন আন্তরিকতার সঙ্গে গ্রহণ করে নেয়। ‘তুই জঙ্গি’ বলে যেন তাকে আবারো নেতিবাচক পথের দিকে যেন ঠেলে দেয়া না হয়।

তিনি বলেন, জঙ্গিবাদ একটা আদর্শিক সমস্যা, এটা মোকাবেলার জন্য প্রয়োজন সঠিক ধর্মীয় ব্যাখ্যা। তাদেরকে সমাজের মূল স্রোতধারার ফিরিয়ে আনতে চাই। আজ আত্মসমর্পণ করা নয়জনের মধ্যে ৮ জনই তাদের পরিবারের কাছে ফেরত যাবেন। একজনকে আইনের কাছে সোপর্দ করা হবে, আইনি কার্যক্রমের মাধ্যমে পরবর্তীতে ফেরত যাবেন তিনি।

র‍্যাব প্রধান আরও বলেন, জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে আমরা আভিযানিক কার্যক্রম আরও বেগবান করবো, কোথাও জঙ্গিরা টিকে থাকতে পারবেনা। তাই যারা পলাতক আছেন আইনের কাছে আত্মসমর্পণ করুন। বাংলাদেশকে একটি শান্তিপূর্ণ রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তোলতে সহায়তা করুন।

ট্যাগ: bdnewshour24