banglanewspaper

উপহার হিসেবে ভারতের পাঠানো করোনা ভাইরাসের ২০ লাখ ডোজ টিকা বাংলাদেশে পৌঁছেছে। 

বৃহস্পতিবার (২১ জানুয়ারি) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে ভ্যাকসিন বহনকারী এয়ার ইন্ডিয়া চার্টারের একটি বিমান (ফ্লাইট: ১২৩২-২১)।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জি নিউজের খবরে বলা হয়েছে, ভারতের স্থানীয় সময় সকাল ৯টা ৪০ মিনিটে ভ্যাকসিন নিয়ে ওই উড়োজাহাজটি ঢাকার উদ্দেশে রওনা হয। তাতে ১৬৭টি বাক্সে করে ২০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন আনা হয়। 

ভ্যাকসিন আসার পর বিমানবন্দরে স্বাস্থ্য অধিদফতর, কেন্দ্রীয় ঔষধাগার ও ঢাকাস্থ ভারতীয় হাইকমিশনের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। 

এর আগে ভোরে মুম্বাইয়ের ছত্রপতি শিবাজি মহারাজ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছায় ভারতের ভ্যাকসিন উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান সেরাম ইনস্টিটিউট অব ইন্ডিয়ার ‘কোভিশিল্ড’ নামের ভ্যাকসিন। 

এদিকে শাহাজালাল বিমানবন্দর থেকে দুটি ফ্রিজার ট্রাকে করে এসব ভ্যাকসিন নিয়ে রাখা হবে তেজগাঁওয়ে ইপিআই স্টোরেজ।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের জনসংযোগ কর্মকর্তা শেখ আক্কাস আলী সকালে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ২০ লাখ ডোজ টিকার মধ্য থেকে কিছু টিকা রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় নেয়া হবে। সেখানে উপহার গ্রহণের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হবে।

অক্সেফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও অ্যাস্ট্রাজেনেকা কোম্পানির যৌথ উদ্যোগে তৈরি ‘কোভিশিল্ড’ নামের করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিনটি বাজারজাত করছে ভারতের ভ্যাকসিন উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান সেরাম ইন্সটিটিউট। গেল শনিবার (১৬ জানুয়ারি) থেকে ভারতের মানুষকে টিকা দেয়ার কার্যক্রম শুরু হয়েছে। 

উপহারের বাইরে গেল ৫ নভেম্বর ‘কোভিশিল্ড’ নামের ওই টিকার ৩ কোটি ডোজ কিনতে সেরামের সঙ্গে চুক্তি করে বাংলাদেশ সরকার। এই ৩ কোটি ডোজ দেশের নাগরিকদের বিনামূল্যে প্রয়োগ করবে সরকার। গত ৪ জানুয়ারি বাংলাদেশের ওষুধ প্রশাসন অধিদফতর এ টিকা আমদানি ও জরুরি ব্যবহারের অনুমোদন দেয়। চুক্তি অনুযায়ী, উপহারের বাইরে ২৫ জানুয়ারির মধ্যে প্রথম ধাপে ভারত থেকে সেরামের ৫০ লাখ ডোজ টিকা বাংলাদেশে আসার কথা রয়েছে।

এর আগে সম্প্রতি এক ব্রিফিংয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. জাহিদ মালেক জানিয়েছিলেন, বাংলাদেশে ভারত থেকে আনা প্রতি ডোজ টিকার ক্রয়মূল্য হবে ৪ ডলার (দেশীয় মুদ্রায় প্রায় ৩৪০ টাকা)। সব মিলিয়ে এ দাম পড়বে ৫ ডলার (দেশীয় মুদ্রায় প্রায় ৪২৫ টাকা)। 

করোনা ভ্যাকসিন ক্রয় চুক্তির ধারা অনুযায়ী, ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট ৬ মাসে বাংলাদেশকে ৩ কোটি টিকা দেয়ার কথা রয়েছে। প্রতিমাসে টিকা আসবে ৫০ লাখ করে। বাংলাদেশ সরকার জনগণকে বিনামূল্যে এ টিকা দেয়ার ঘোষণা আরও আগেই দিয়ে রেখেছে। এছাড়া বেক্সিমকো বেসরকারিভাবেও ৩০ লাখ টিকা আনবে, যার প্রতি ডোজের দাম পড়বে ১ হাজার ২০০ টাকা। 

ট্যাগ: bdnewshour24