banglanewspaper

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যাপিটল বিল্ডিংয়ে হামলায় উস্কানির অভিযোগে সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিশংসন প্রক্রিয়া শুরু হচ্ছে আগামী সোমবার। শুক্রবার সিনেটের সংখ্যাগরিষ্ঠ নেতা ডেমোক্রেট চাক শুমার এ তথ্য জানিয়েছেন।

তবে ট্রাম্পের দল রিপাবলিকান পার্টির নেতারা এ বিচার শুরুতে তাড়াহুড়া না করার পক্ষে মত দিয়েছেন। তাদের দাবি, বিচার মোকাবিলা করতে ট্রাম্পের আইনজীবীদের সময় দেওয়া উচিত।

সিনেটে দেওয়া ভাষণে সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের চাক শুমার ট্রাম্পের অভিশংসন শুরুর ঘোষণা দিয়ে বলেন, ‘আমি স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির সঙ্গে কথা বলেছি। তিনি আমাকে জানিয়েছেন, আগামী সোমবার সিনেটে অভিযোগ উপস্থাপন করা হবে।’ 

সহকর্মীদের উদ্দেশে তিনি আরও বলেন, ‘সিনেটে ভোটাভুটি হবে। প্রেসিডেন্টকে অভিযুক্ত করা হবে কি না, সে বিষয়ে সিনেটররা ভোট দেবেন।’

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জালিয়াতির অভিযোগ তুলে ৬ জানুয়ারি কংগ্রেস ভবনে ক্যাপিটলে তাণ্ডব চালান ট্রাম্প–সমর্থকেরা। ওই ঘটনার প্রেক্ষাপটে ‘বিদ্রোহে উসকানি’ দেওয়ার অভিযোগে ক্ষমতা ছাড়ার এক সপ্তাহে আগে ১৩ জানুয়ারি কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদ ট্রাম্পকে অভিশংসিত করে। 

যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে এই প্রথম কোনো প্রেসিডেন্ট দুবার অভিশংসিত হলেন। এর আগে ক্ষমতার অপব্যবহার ও কংগ্রেসের কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগে ২০১৯ সালে প্রতিনিধি পরিষদে ট্রাম্পকে অভিশংসন করা হয়। 

যদিও তৎকালীন রিপাবলিকান পার্টি সংখ্যাগরিষ্ঠ সিনেট ট্রাম্পকে খালাস দেন। ট্রাম্প প্রথম প্রেসিডেন্ট, যাকে ক্ষমতা ছাড়ার পরও অভিশংসন বিচারের মুখোমুখি হতে হচ্ছে।

ট্রাম্পকে দ্বিতীয়বারের মতো অভিশংসন বিচার দ্রুত শুরুর বিরোধিতা করে গত বৃহস্পতিবার রিপাবলিকান সিনেটর মিচ ম্যাককনেল বলেছেন, প্রস্তুতি নেওয়ার জন্য সাবেক প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে অন্তত দুই সপ্তাহের সময় দেওয়া হোক। 

বিচারের প্রস্তাবটি সিনেটে আলোচনার জন্য ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত স্থগিত রাখার কথা জানিয়ে ম্যাককনেল বলেন, অভিশংসন বিচার মোকাবিলার জন্য এই সময় দেওয়া প্রয়োজন। গত বুধবারের আগ পর্যন্ত সিনেটের সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের নেতা ছিলেন ম্যককনেল। 

ট্রাম্প সিনেটে তার বিচার মোকাবিলার জন্য অন্তত একজন আইনজীবীকে নিয়োগ দিয়েছেন। ট্রাম্পের ঘনিষ্ঠ সহযোগী ও রিপাবলিকান সিনেটর লিন্ডসে গ্রাহাম ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বৃহস্পতিবার নিজ দলের সিনেটরদের জানান, সাউথ ক্যারোলাইনার আইনজীবী বাচ বায়ারকে নিয়োগ দিয়েছেন ট্রাম্প।

গ্রাহাম বলেছেন, ট্রাম্পের বিচার মোকাবিলার জন্য একটাই যুক্তি তুলে ধরা হবে। আর তা হলো, যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধানে ক্ষমতা থেকে চলে যাওয়া কোনো প্রেসিডেন্টকে বিচার করার নিয়ম নেই।

রিপাবলিকানদের পক্ষ থেকে ট্রাম্পকে আর অভিশংসন বিচারে দাঁড় না করানোর অনুরোধ জানানো হচ্ছে। একদিকে সংবিধানে এমন কোনো বিধান নেই এবং প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন যে ঐক্যের আহ্বান জানিয়েছেন, তার সঙ্গে বিষয়টি সাংঘর্ষিক বলে যুক্তি দেওয়া হচ্ছে।

পেলোসি একবাক্যে রিপাবলিকানদের এমন দাবি প্রত্যাখ্যান করেছেন। বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছেন, একজন প্রেসিডেন্ট ক্ষমতার শেষ সময়ে এসে যা ইচ্ছা তা করবেন, এমন উদাহরণ মেনে নেওয়া যায় না। 

ট্যাগ: bdnewshour24