banglanewspaper

গেল বছরের ২২ নভেম্বরের ঘটনা। ওইদিন পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ২৪ পরগণার বরাহনগরে কমিউনিস্ট পার্টি অব ইন্ডিয়ার (সিপিএম) একটি ফ্রি কোচিং ক্লাসের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনে গিয়েছিলেন টলিগঞ্জের বহুল আলোচিত ও আবেদনময়ী অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র। প্রশ্নটা তখনই উঠেছিল- তবে কি রাজনীতির আঙিনায় আসছেন নায়িকা?

ওইদিন সাংবাদিকরাও শ্রীলেখাকে সেই প্রশ্নটি ছুড়ে দিয়েছিলেন। প্রশ্ন শুনেই মুখ উপচানো হাসিতে তিনি পাল্টা প্রশ্ন রেখে বলেন, ‘মনে হচ্ছে তাই? তা হলে তাই-ই...।’

সেদিন শ্রীলেখা বলেছিলেন, ‘আমি কট্টর বামপন্থি। আজ নয়, বরাবরই। সে কথা প্রথম প্রকাশ্যে আসে সৌরভ পালধির একটি ডিজিটাল প্লাটফর্মের অনুষ্ঠানে যাওয়ার পর। বাম নেতারাও জানেন তাদের প্রতি আমার সমর্থনের কথা।’

পশ্চিমবঙ্গে বিধানসভা নির্বাচনের জোর প্রচার-প্রচারণা চলছে। রাজ্যের পালে যখন নির্বাচনের হাওয়া তখন বিপরীতে চলছে দল বদলের হিড়িক। ভোটের এ হাওয়ায় ‘বামপন্থি’ হিসেবে পরিচিত আরেক টলিউড অভিনেত্রী সায়নী ঘোষ যোগ দিয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেসে। আর তাতেই ক্ষেপেছেন শ্রীলেখা। 

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জিনিউজের খবরে বলা হয়েছে, গতকাল বুধবার তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দেন সায়নীসহ একঝাঁক টলি তারকা। সেই তালিকায় আছেন জুন মালিয়া, রাজ চক্রবর্তী, কাঞ্চন মল্লিক, মানালি দে, সুদেষ্ণা রায়ের মতো পরিচিত মুখ। আছেন ভারতের জাতীয় দলের সাবেক ক্রিকেটার মনোজ তিওয়ারিও।

দলবদলের এই জোয়ারে প্রশ্ন তুলেছেন শ্রীলেখা। তবে তার প্রশ্নটা মূলত সায়নীকে নিয়েই। জুনিয়র এ অভিনেত্রীকে উদ্দেশ্য করে ফেসবুকে দেয়া এক পোস্টে শ্রীলেখা লিখেন- ‘এমনটি আশা করিনি, সায়নী। তুইও বিক্রি হয়ে গেলি? খেলতে নেমে গেলি? খুবই দুঃখজনক।’

সায়নীকে নিয়ে শ্রীলেখার এমন পোস্টের পরই আলোচনা-সমালোচনার আরও জোরালো হয়।

সম্প্রতি একটি টিভি চ্যানেলের টক শোতে হাজির হয়ে তৃণমূলে যোগদানের কথা জানিয়ে ধর্ষণের হুমকি পেয়েছিলেন সায়নী।

এদিকে টলিগঞ্জের অনেক অভিনেতা-অভিনেত্রীই যখন ক্ষমতাসীন তৃণমূল কিংবা প্রধান বিরোধী দল বিজেপির রাজনীতির সঙ্গে জড়াচ্ছেন তখন শ্রীলেখাও চলেছেন স্রোতের বিপরীতে।

গেল ২২ নভেম্বরের ওই অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গিয়ে এ অভিনেত্রী সাংবাদিকদের বলেছিলেন, ‘হঠাৎ করে সবুজ বা গেরুয়া রঙে নিজেকে রাঙিয়ে নেয়া যায়। কিন্তু লাল পতাকাকে সমর্থন করতে গেলে সেটা হঠাৎ করে হয় না। সেজন্য শিক্ষার প্রয়োজন। কারণ এই একটি রাজনৈতিক দল ভীষণ শিক্ষিত।’

পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিতে বামদের জনপ্রিয়তায় ভাটার বিষয়টি মানতে নারাজ শ্রীলেখা বলেন, ‘একটু খেয়াল করলেই দেখা যাবে লাল পতাকা কিন্তু আবার জাগছে। অনেক স্থানে শ্রমজীবী ক্যান্টিন, করোনাকালীন সস্তায় বাজার ও রক্তদান শিবির হয়েছে। মেহনতি মানুষ আবারও জাগছে।’

ট্যাগ: bdnewshour24