banglanewspaper

করোনাভাইরাসের চতুর্থ ঢেউ সামলাতে ইরানের অধিকাংশ অঞ্চলে ১০ দিনের লকডাউনের ঘোষণা দিয়েছে সরকার। দেশটির রাষ্ট্রায়ত্ত গণমাধ্যমের বরাতে বার্তা সংস্থা রয়টার্স এক প্রতিবেদন জানিয়েছে, শনিবার থেকে দেশটির ৩১টি প্রদেশের মধ্যে ২৩টিতে এই লকডাউন শুরু হয়েছে।
 
আগামী বুধবার থেকে দেশটিতে শুরু হতে যাওয়া রমজানকে কেন্দ্র করে যেকোন সমাগমসহ স্কুল, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, থিয়েটার এবং খেলাধুলার স্থান খোলা রাখার উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।
 
ইরানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য বলছে, গত সপ্তাহে ইরানে করোনাভাইরাসের দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা গড়ে প্রায় বিশ হাজার করে বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশটির মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২০ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। আক্রান্তদের মধ্যে ৬৪ হাজারের বেশি মারা গেছেন বলে জানিয়েছে মন্ত্রণালয়টি। ইরানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আলিরেজা রাইসি জানান, যুক্তরাজ্যের ধরনটি এই মুহুর্তে ২৫৭টি শহরে ছড়িয়ে পড়েছে। এই শহরগুলোতে এখন রেড অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে।
 
চতুর্থ ঢেউয়ের জন্য ইরাক হয়ে প্রবেশ করা করোনাভাইরাসের যুক্তরাজ্য ধরনকে দোষারোপ করেছেন ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি। পাশাপাশি ২০ মার্চ ইরানের নববর্ষের উদযাপনসহ গত কিছু দিনে বিয়ের অনুষ্ঠান ও ভ্রমণ বেড়ে যাওয়ায় করোনাভাইরাসের চতুর্থ ঢেউ শুরু হয়েছে বলে জানান তিনি।
 
মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর মধ্যে ইরানে করোনাভাইরাসের প্রকোপ সবচেয়ে বেশি। দেশটির টিকা কর্মসূচীও ধীরগতিতে আগাচ্ছে বলে রয়টার্স জানিয়েছে। ইরানের ২০ লাখ স্পুটনিক ভি টিকার অর্ডারে রাশিয়া পাঠিয়েছে মাত্র চার লাখ ডোজ। অপরদিকে অ্যাস্ট্রজেনেকার ৪২ লাখ টিকার ডোজের অপেক্ষায় আছে তেহরান।
 
অবশ্য দরিদ্র দেশগুলোতে ভ্যাকসিন সরবরাহে বৈশ্বিক কর্মসূচি কোভ্যাক্সে আওতায় পাঁচ লাখ সিনোফার্ম ভ্যাকসিনের মধ্যে ইতোমধ্যে আড়াই লাখের সরবরাহ পেয়েছে তেহরান। আট কোটি ৩০ লাখ জনসংখ্যার ইরানে শুধু স্বাস্থ্য কর্মীদেরকে দেওয়ার জন্য ২০ মার্চের মধ্যে অন্তত ২০ লাখ টিকা পাওয়ার আশা করেছিল ইরান।

ট্যাগ: bdnewshour24