banglanewspaper

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি: টাঙ্গাইলের নাগরপুরে শ্বশুরের দায়ের কোপে গুরুতর আহত ছেলের স্ত্রী অবশেষে মারা গেলেন। বৃহস্প্রতিবার (১৫ এপ্রিল) দুপুরে নবু খান (৭০) তার ছেলে টিক্কা খানের (৪৫) স্ত্রী হামিদাকে (৩২) পারিবারিক কাজে ব্যবহৃত দা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করেন। চিকিৎসারত অবস্থায় রবিবার রাতে হামিদার মৃত্যু হয়। নাগরপুর উপজেলার মেঘনা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। 

স্থানীয়রা জানায়, নবু খানের সাথে তার ছেলের স্ত্রী হামিদার কথা কাটাকাটি লেগেই থাকতো। নবু খান গত বৃহস্প্রতিবার (১৫ এপ্রিল) দুপুরে পারিবারিক কলহের জেরে দা দিয়ে হামিদাকে কোপান। এতে গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয়রা উদ্ধার করে প্রথমে নাগরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে যায়। সেখানে তার অবস্থা সংকটাপন্ন বলে, উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে টাঙ্গাইল সদর হাসপাতালে রেফার্ড করেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। সেখানে চিকিৎসারত অবস্থায় রবিবার রাতে তার মৃত্যু হয়। 

নিহতের কন্যাশিশু জানায়, তার মা গোছলের সময় তার দাদা পেছন থেকে কোপ মারে। এ সময় মায়ের চিৎকারে সে কাছে গেলে তাকেও কোপানোর হুমকি দেন। 

নিহত হামিদার বোন বলেন, তার বোন হামিদাকে প্রথমে পেছন দিক থেকে তার শশুর কোপ মারে এবং পরে ফিরে দেখতে গেলে তার মাথায় কোপ দিতে যায়, তখন হাত দিয়ে ফেরানোর সময় তার বাম হাতের কয়েকটি আঙ্গুল কেটে যায়। এ ঘটনার সুষ্ঠ্য বিচার চান তিনি। 

এ বিষয়ে নাগরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আনিসুর রহমান বলেন, বিষয়টি জেনে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। এ বিষয়ে আইনানুগ বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন।

ট্যাগ: bdnewshour24 নাগরপুর