banglanewspaper

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) মহাপরিচালক তেদ্রোস আধানম গেব্রিয়েসুস মনে করেন, করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় যেসব উপকরণ এই মুহূর্তে মানুষের হাতে রয়েছে, তাতে আগামী এক মাসের মধ্যে বিশ্বজুড়ে মহামারি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। 

সোমবার (১৯ এপ্রিল) এক সংবাদ সম্মেলনে নিজের এই ধারণা প্রকাশ করেন তিনি।

করোনায় বিশ্বজুড়ে উচ্চ মৃত্যুহারে শঙ্কা প্রকাশ করে সংবাদ সম্মেলনে ডব্লিউিএইচও প্রধান বলেন, ‘করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ১০ লাখে পৌঁছাতে সময় লেগেছিল ৯ মাস। তারপর এই সংখ্যা ২০ লাখে পৌঁছাতে সময় লেগেছে ৪ মাস এবং তারপরের ৩ মাসে করোনায় বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা পৌঁছেছে ৩০ লাখে।’

তিনি বলেন, এত কম সময়ের মধ্যে এই পরিমাণ মৃত্যু খুবই উদ্বেগের ব্যাপার। তবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা মনে করে, আমাদের হাতে বর্তমানে যেসব উপকরণ মজুত আছে, সেগুলো যদি ন্যায্যতার সঙ্গে ধারাবাহিকভাবে ব্যবহার করা হয়, সেক্ষেত্রে আগামী এক মাসের মধ্যে এই মহামারি নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব।

ভার্চুয়াল ওই বৈঠকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান ও বিশ্বব্যাপী জলবায়ু পরিবর্তন বিভাগের কর্মী গ্রেটা থুনবার্গ একসঙ্গে বলেন, ‘আগামী আগস্ট মাসের মধ্যে আমরা করোনাকে নিয়ন্ত্রণে আনতে পারবো। মারণব্যাধিকে রুখতে প্রয়োজনীয় মেডিকেল সরঞ্জামের সরবরাহ অব্যাহত রয়েছে। খুব দ্রুত আমরা এই বৈশ্বিক সংকট কাটিয়ে উঠতে পারবো।’

আনাধম বলেন, ‘করোনা মোকাবিলায় যেভাবে উন্নত দেশগুলোর তুলনায় উন্নয়নশীল দেশগুলো একযোগে কাজ করে যাচ্ছে তা সত্যিই প্রশংসনীয়।’

একইসঙ্গে পরিস্থিতি অত্যন্ত উদ্বেজনক উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘২৫ থেকে ৫৯ বছর বয়সীরা যেভাবে আক্রান্ত হচ্ছেন তা যথেষ্ট উদ্বেগজনক।’

থুনবার্গ বলেন, ‘উন্নত দেশগুলোর প্রতি চার জনে একজন টিকা নেয়া হয়ে গেছে। সেখানে দরিদ্র দেশগুলোতে প্রতি ৫০০ জনে একজন করোনার টিকা নিতে পেরেছেন। এছাড়া করোনা নিয়ে অবহেলা, অসচেতনতা ভাইরাসটি সংক্রমণ আরও বাড়িয়ে তুলেছে।’

ট্যাগ: bdnewshour24