banglanewspaper

নাশকতার পৃথক দুই মামলায় হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগর শাখার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং খেলাফত মজলিসের মহাসচিব মামুনুল হকের বিরুদ্ধে আরও ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। 

সোমবার (২৬ এপ্রিল) রিমান্ড শুনানি শেষে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সাদবীর ইয়াসির আহসান চৌধুরীর আদালত এ আদেশ দেন। 

২০১৩ সালের মতিঝিল থানার মামলায় তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক মনিরুজ্জামান হেফাজত নেতা মামুনুলকে গ্রেফতার  দেখানোর আবেদনসহ ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন করে আদালতে হাজির করেন। শুনানি শেষে আদালত ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। 

অন্যদিকে চলতি বছরের পল্টন থানায় করা নাশকতার অপর মামলায় তদন্ত কর্মকর্তা পরিদর্শক কামরুল ইসলাম মামুনুল হককে গ্রেফতার দেখানোর আবেদনসহ ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। এসময় আসামিপক্ষের আইনজীবী সৈয়দ জয়নাল আবেদীন মেজবাহ রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন আবেদন করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত মামুনুলের ৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

মারধর, হত্যার উদ্দেশ্যে আঘাত গুরুতর জখম, চুরি, হুমকি ও ধর্মীয় কাজে ইচ্ছাকৃতভাবে গোলযোগের অভিযোগে মোহাম্মদপুর থানায় স্থানীয় এক ব্যক্তির করা মামলায় ৭ দিনের রিমান্ড শেষে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সাজেদুল হক আজ মামুনুলকে আদালতে হাজির করেন। 

গত ১৯ এপ্রিল এ মামলায় এসআই সাজেদুল হকের করা রিমান্ড আবেদন মঞ্জুর করে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট দেবদাস চন্দ্র অধিকারীর আদালত মামুনুলকে ৭ দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছিলেন। 

গত ১৮ এপ্রিল দুপুর ১২টা ৫০ মিনিটের দিকে গোয়েন্দা পুলিশের একাধিক টিম ও ডিএমপির তেজগাঁও বিভাগের যৌথ অভিযানে রাজধানীর মোহাম্মদপুরের জামিয়া রাহমানিয়া মাদরাসার দোতলার একটি কক্ষ থেকে মামুনুল হককে গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, ২০১৩ সালের ৫ মে মতিঝিলের শাপলা চত্বরে হেফাজতে ইসলামের তাণ্ডবের ঘটনাসহ মামুনুল হকের বিরুদ্ধে ১৭টি মামলা রয়েছে। এসব মামলায় তিনি এজাহারনামীয় আসামি। 

এছাড়া স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে সাম্প্রতিক মোদীবিরোধী আন্দোলনের সময় সহিংসতার উস্কানিদাতা হিসেবেও মামুনুলের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে। 

ট্যাগ: bdnewshour24