banglanewspaper

কলকাতার কালীঘাট অঞ্চলে ৩০বি হরিশ চ্যাটার্জি স্ট্রীট আজ অধিকাংশ পশ্চিমবঙ্গবাসীর কাছে প্রায় এক তীর্থস্থানের মর্যাদা পেয়ে গেল। আকাশে বাতাসে খুশির হাওয়া। করুনার কারণে মানুষ বেশি নেই, কিন্তু যারা আছেন তারা সবুজ আবির মেখে আনন্দে মাতোয়ারা।

"খেলা হবে ,খেলা হবে" গান বাজছে, মিষ্টি বিতরণ হচ্ছে, আর সমবেত মানুষ আলোচনা করছে কিভাবে বিজেপিকে হারিয়ে পশ্চিমবঙ্গ আবার নিজের মেয়েকেই জায়গা করে দিল।

এই জয় পশ্চিমবঙ্গের মানুষের জয় , নরেন্দ্র মোদিকে হারালো পশ্চিমবঙ্গের মানুষ আর বুঝিয়ে দিল "বাংলা নিজের মেয়েকে চায়"- মমতার বাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে বললেন কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিম। ভেতরে অর্থাৎ মমতার বাসায় তখন ব্যস্ততা। মমতা কিছুক্ষণের জন্য দেখা দিলেন সমর্থকদের আর বললেন তারা যেন করোনা প্রটোকল মেনে চলেন।

'বাংলায় পারে বাংলায় পারে" বললেন মমতা।

"বাংলার মানুষের জয় তবে আমরা কোনো বিজয় মিছিল করব না, আমাদের এখন করোনার বিরুদ্ধে লড়াই করতে হবে" তিনি আরো বললেন।

এই প্রতিবেদন লেখার সময় এবং শেষ ফলাফল আসেনি তীব্র লড়াই চলছে নন্দীগ্রামে কখনো মমতা এগিয়ে কখনো শুভেন্দু অধিকারী।

শেষ রাউন্ডে গননা বাকি দিদি এখনো ৮০০ ভোটে এগিয়ে বললেন দিদির এক অনুগামী। ভিতরে মমতা তখন ব্যস্ত নিজের ভাইয়ের ছেলে অভিষেকের সাথে আলোচনায়।

পুরো ফল এলে দিদি কালীঘাট মন্দিরে পুজো দিতে যাবেন... তারপর এসে সাংবাদিকদের সাথে আলাপ করবেন" বললেন তিনি।

তবে এর আগে মমতার নির্বাচনী এলাকা নন্দীগ্রাম নিয়ে চরম বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়। ১৭ দফা ভোটগণনার পর তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সেখানে জয়ী হয়েছেন বলে খবর এসেছিল। কিন্তু সন্ধ্যার পর মমতার জয় নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে। বলা হয়, সার্ভারে সমস্যার জেরে সঠিক ভাবে কিছু জানা যাচ্ছে না। তার পরেই ১৬২২ ভোটে শুভেন্দু অধিকারীর জয়ের খবর আসে। তারপর সাংবাদিক বৈঠকে নন্দীগ্রামে হেরে গিয়েছেন বলে জানান মমতা। তবে মমতা নিজে হারলেও রাজ্যে মমতার দলেরই জয় নিশ্চিত হয়েছে। তবে শেষ পর্যন্ত জানা যায়, তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ আসন নন্দীগ্রামের ফলাফল ঘোষণা আপাতত স্থগিত করা হয়েছে।

ট্যাগ: bdnewshour24