banglanewspaper

চীনে নতুন করে একটি সংকট দেখা দিয়েছে। দেশটিতে অবিবাহিত পুরুষের সংখ্যা এখন ৩ কোটি (৩০ মিলিয়ন), যা কোনো কোনো দেশের মোট জনসংখ্যার চেয়েও বেশি। বিপুলসংখ্যক এই বিবাহযোগ্য পাত্রের তুলনায় পাত্রীর সংখ্যা অনেক কম। বিশেষজ্ঞরা ধারণা করছেন, বিদ্যমান পরিস্থিতিতে দেশটিতে লিঙ্গবৈষম্য শিগগিরই কমার কোনো সুযোগ নেই। দেশটির সপ্তম জনসংখ্যা শুমারিতে এ তথ্য উঠে এসেছে।

চীন দীর্ঘদিন ধরে ছেলেশিশুদের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার বজায় রেখেছে এবং সাম্প্রতিক পরিসংখ্যান সত্ত্বেও মেয়েশিশু জন্মের হার মাত্র কিছুটা বৃদ্ধির পরামর্শ দিয়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এ পরিস্থিতিতে লিঙ্গবৈষম্যের সমস্যা খুব দ্রুত সমাধান হবে না।

এএনআইর চীনের জাতীয় পরিসংখ্যান ব্যুরো এনবিএসের জনসংখ্যাশুমারি অনুযায়ী, দেশটিতে গত বছর ১ কোটি ২০ লাখ (১২ মিলিয়ন) ছেলেশিশু জন্মগ্রহণ করেছে। এ সময় প্রতি ১০০ জন মেয়েশিশুর অনুপাতে ১১১ দশমিক ৩ জন ছেলেশিশু জন্ম নিয়েছে। ২০১০ সালে এই রেশিও ছিল ১১৮ দশমিক ১ থেকে ১০০ জন। চীনে নারীপ্রতি সন্তান জন্মদানের হার ১ দশমিক ৩ জন; যেখানে স্থিতিশীল জনসংখ্যার জন্য প্রতি নারীর সন্তান জন্মদানহার থাকা উচিত ২ দশমিক ১ জন।

স্টুয়ার্ট গিয়েটেন-বাসটেন বলেছেন, ‘সাধারণত চীনের পুরুষরা নিজেদের চেয়ে অনেক কম বয়সী মেয়ে বিয়ে করে। কিন্তু বয়স্ক জনসংখ্যার হার বেশি থাকার কারণে পরিস্থিতি আরো সঙ্গিন হয়ে উঠেছে।’ তিনি আরো উল্লেখ করেছেন, চীনা পরিবারগুলোয় মেয়ের তুলনায় ছেলেশিশু কামনা করা হয় বেশি।

বর্তমানের মেয়েশিশুরা যখন বিয়ের উপযুক্ত হবে তখন চীনে সম্ভাব্য কনের সংকট সৃষ্টি হবে বলে জানিয়েছেন অধ্যাপক জর্ন অ্যালপারম্যান। তিনি বলেন, ‘গত বছর যে ১২ মিলিয়ন শিশু জন্মগ্রহণ করেছে তাদের মধ্যে ছয় লাখ ছেলে বড় হওয়ার পর বিয়ের জন্য মেয়ে খুঁজে পাবে না।’

চীনে ১৯৭৯ সালে এক-শিশু নীতি প্রণয়ন করা হয় এবং তা ২০১৬ সালে প্রত্যাহার করা হয়। এ সময়টিতে ছেলেশিশুর প্রত্যাশায় গর্ভপাতের হারও বেড়ে যায় বলে জানিয়েছেন জনসংখ্যাতত্ত্ব বিষয়ক অধ্যাপক জিয়াং কোয়ানবাও। নিম্নবিত্তের পুরুষদের পক্ষে কনে খুঁজে পাওয়া আরো কঠিন উল্লেখ করে অধ্যাপক কাই ইয়ং উল্লেখ করেন, তারা শারীরিক ও মানসিক সমস্যায় ভুগবে।

সূত্র : সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট।

ট্যাগ: bdnewshour24