banglanewspaper

শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে বিয়ের কাবিননামার দাবিতে মাদ্রাসাশিক্ষকের বাড়িতে অবস্থান নিয়ে অনশন শুরু করেছেন পোশাকশ্রমিক এক প্রেমিকা। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার ধানশাইল ইউনিয়নের চকপাড়া গ্রামে। অনশনকারী ওই নারীর বাড়ি দিনাজপুর জেলার ঘোড়াঘাট উপজেলার ইসলামপুর গ্রামে। তিনি ওই গ্রামের কোরাজ মিয়ার কন্যা। কামরুন্নাহার গাজীপুর চৌরাস্তা এলাকার রোয়া ফ্যাশনের একজন পোশাকশ্রমিক।

অন্যদিকে অভিযুক্ত ওই মাদ্রাসাশিক্ষকের নাম রফিকুল ইসলাম। তিনি চকপাড়া গ্রামের আকাবর আলীর ছেলে। রফিকুল স্থানীয় পানবর ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক ও দুই সন্তানের জনক।

এ ঘটনার পর থেকে রফিকুল ইসলাম গা-ঢাকা দিয়েছেন।

এর প্রতিকার চেয়ে কামরুন্নাহার ইতোমধ্যে ইউএনও এবং থানা পুলিশে একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন।

মঙ্গলবার বিকালে কামরুন্নাহার বলেন, তার সাথে শিক্ষক রফিকুল ইসলামের ছোট বোন আলেয়া (২৭) পোশাক কারখানায় চাকরি করত। সে সুবাদে রফিকুল ইসলাম তার বোনের কাছে গাজীপুরে মাঝে-মধ্যে বেড়াতে আসত। এক পর্যায়ে রফিকুলের সাথে তার মন দেয়া-নেয়া শুরু হয়। এ সম্পর্ক চলে প্রায় ৭ বছর। এই সময়ের মধ্যে রফিকুল তাকে জানায়নি সে বিবাহিত। প্রেম চলার সময়ে তারা শারীরিক সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। পরে রফিকুলকে বিয়ে করার জন্য বললে সে এক মৌলভী দিয়ে বিয়ে পড়ান, কিন্তু ওই সময়ে কাবিননামা সম্পন্ন হয়নি। গত ১৭ মে কাবিননামা করে দিতে বললে জেলার শ্রীবরদী উপজেলার কুরুয়া বাজারের মন্টু নামে এক কাজীর মাধ্যমে একটি কাবিননামা তৈরি করা হয়। এ সময় ওই কাজীর কাছে কাবিননামার নকল চাইলে সে আগামী ৮ দিন পর তা দেয়া হবে বলে জানায়। নির্দিষ্ট সময় পর কাবিনের নকল আনতে ওই এলাকায় গেলে ওই কাজীর কোন হদিস পাওয়া যায়নি। পরে এ ঘটনার প্রতিকার চেয়ে ৭ জুন ঝিনাইগাতীর ইউএনও এবং থানা পুলিশে লিখিত অভিযোগ করা হয়। এছাড়া কাবিননামার দাবিতে অনশন শুরু করি।

রফিকুল ইসলামের ছোট বোন আলেয়া জানান, কামরুন্নাহার ঝিনাইগাতীতে তার ভাইয়ের গ্রামের বাড়িতেও বেড়াতে আসত। বিয়ের কাবিন না হলেও সংসার করেন তারা। এক পর্যায়ে কামরুন্নাহার বিয়ের কাবিনের জন্য চাপ দিলে রফিকুল নানাভাবে টালবাহানা শুরু করেন। উপায়ান্ত না পেয়ে কামরুন্নাহার অনশন শুরু করেন। এ ঘটনার পর থেকে তার ভাই গা-ঢাকা দিয়েছেন।

এক প্রশ্নের জাবাবে আলেয়া বলেন, আমার বান্ধবীকে বিয়ে করবে বলে ভাই রফিকুল স্ত্রী ও সন্তানদের কথা কামরুন্নাহারকে না জানাতে অনুরোধ করেন। তার স্ত্রী ঝিনাইগাতী শহরে থাকে আর গ্রামের বাড়িতে বৃদ্ধ মা-বাবাকে দেখার মতো কেউ নেই। এ কারণে বাড়িতে একজন কাজের লোকের দরকার। তাই কামরুন্নাহারকে সে বিয়ে করতে চেয়েছিল।

ওই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মনিনুর রহমান উকিল অনশনের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

অন্যদিকে মাদ্রাসাশিক্ষক রফিকুল ইসলাম ইসলাম এ বিষয়ে কিছুই জানেন না বলে দাবি করেছেন।

থানা পুলিশের ওসি মোহাম্মদ ফায়েজুর রহমান অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি জানিয়ে বলেন, ঘটনাস্থল যেহেতু গাজীপুর- তাই মামলা সেখানেই হওয়ার কথা। তারপরও এ ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।

ট্যাগ: bdnewshour24