banglanewspaper

ভারতের প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক সমরেশ মজুমদার প্রচণ্ড শ্বাসকষ্ট নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তাকে ভেন্টিলেশনে দেয়ার কথা ভাবা হচ্ছে বলে জানাচ্ছেন চিকিৎসকরা। তবে তিনি করোনায় আক্রান্ত নন বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্টরা। খবর জিনিউজের।

চিকিৎসকরা জানান, সমরেশ মজুমদার গত ১০-১২ বছর ধরে COPD-(ক্রনিক অবস্ট্রাকটিভ পালমোনারি ডিজিজ)- এর সমস্যায় ভুগছেন। সিওপিডি হলো ফুসফুসের একধরনের জটিল রোগ। এতে শ্বাসপ্রশ্বাসে সমস্যা হয়।


খবরে বলা হয়, ২০১২ সালেও সমরেশ মজুমদার একবার গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। সেসময়ও তাকে ভেন্টিলেশনে দেয়া হয়েছিল। এই মুহূর্তে তাকে আইসিইউতে রাখা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ঔপন্যাসিক হিসাবে বহু বছর ধরে বাংলার পাঠক মনে বিশেষ জায়গা করে নিয়েছেন সমরেশ মজুমদার (Samaresh Majumdar)। ১৯৮২ সালে আনন্দ পুরস্কার ও ১৯৮৪ সালে সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কার পান তিনি। বেশকিছু জনপ্রিয় টিভি ধারাবাহিকের কাহিনীও তার লেখা। বর্তমানে তার বয়স ৭৬ বছর।

সমরেশ মজুমদার ১৯৪২ সালের ১০ মার্চ ডুয়ার্সের গয়েরকাটায় জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭৬ সালে দেশ পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছিল তার প্রথম উপন্যাস ‘দৌড়’। এরপর একে একে সাতকাহন, তেরো পার্বণ, স্বপ্নের বাজার, উজান গঙ্গা, ভিক্টোরিয়ার বাগান, আট কুঠুরি নয় দরজা, অনুরাগ-এর মতো উপন্যাস পাঠক মহলে দারুণ সাড়া ফেলেছে।

ট্যাগ: bdnewshour24

শিল্প-সাহিত্য
শহীদজায়া মুশতারী শফী মারা গেছেন

banglanewspaper

স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের অন্যতম সংগঠক, সাহিত্যিক, নারীনেত্রী, উদীচী চট্টগ্রামের সভাপতি ও শহীদজায়া বেগম মুশতারী শফী আর নেই (ইন্নালিল্লাহি... রাজিউন)। সোমবার (২০ ডিসেম্বর) বিকেল সোয়া পাঁচটার দিকে রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন, বয়স হয়েছিল ৮৪ বছর।

বেগম মুশতারী শফী ছিলেন বাংলা একাডেমি ফেলো এবং বেগম রোকেয়া পদকপ্রাপ্ত। চট্টগ্রামে নারী অধিকার আদায় ও ঘাতক দালাল নির্মূল আন্দোলনে তিনি ছিলেন অগ্র সৈনিক ও সংগঠক।

মরহুমের মেয়ে রুমানা শফী দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘সোমবার বিকেল সোয়া ৫টায় মারা যান আম্মা। তাকে চট্টগ্রামে দাফন করা হবে। তবে কয়টায় জানাজা এবং দাফন করা হবে, সেটি এখনো চূড়ান্ত করা হয়নি। পারিবারিকভাবে আলোচনা করে চূড়ান্ত করা হবে।’

কিডনি, রক্তে ইনফেকশনসহ বার্ধক্যজনিত বিভিন্ন জটিলতায় তাকে প্রথমে চট্টগ্রামের একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে গত ২ ডিসেম্বর ঢাকায় সিএমএইচে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন ছিলেন।

মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে ৭ এপ্রিল বেগম মুশতারীর স্বামী চিকিৎসক মোহাম্মদ শফী ও ছোট ভাই এহসানুল হক আনসারীকে হত্যা করে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী। ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে শব্দসৈনিক হিসেবে কাজ করেছেন বেগম মুশতারী। মুক্তিযুদ্ধে অনন্য ভূমিকার জন্য ২০১৬ সালে শহীদজায়া মুশতারী শফীকে ফেলোশিপ দেয় বাংলা একাডেমি। ২০২০ সালে পেয়েছেন বেগম রোকেয়া পদক।

‘মুক্তিযুদ্ধে চট্টগ্রামের নারী’, ‘চিঠি’, ‘জাহানারা ইমামকে’ এবং ‘স্বাধীনতা আমার রক্তঝরা দিন’ মুশতারী শফীর উল্লেখযোগ্য রচনা।

১৯৬৩ সালে চট্টগ্রাম থেকে ‘বান্ধবী’ নামে মাসিক সাময়িকী প্রকাশ করেছিলেন মুশতারী শফী। বাংলাদেশে নারীদের জন্য প্রকাশিত দ্বিতীয় সাময়িকী বলা হয় ‘বান্ধবী’কে। বান্ধবী সংঘ প্রচারের সময় মেয়েদের প্রেস নামে একটি ব্যতিক্রমী মুদ্রণ সংস্থাও গড়ে তুলেছিলেন লড়াকু এই নারী।

মুশতারী শফীর জন্ম ১৯৩৮ সালে তৎকালীন ব্রিটিশ ইন্ডিয়ার অবিভক্ত বাংলার ফরিদপুরে।

ট্যাগ:

শিল্প-সাহিত্য
কথাসাহিত্যিক বুলবুল চৌধুরী আর নেই

banglanewspaper

খ্যাতিমান কথাসাহিত্যিক বুলবুল চৌধুরী আর নেই। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজেউন)।

শনিবার সন্ধ্যা ছয়টার দিকে রাজধানীর বাংলাবাজারস্থ নিজ বাসায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

বুলবুল চৌধুরীর ঘনিষ্ঠজন চিত্রগ্রাহক কামরুল মিথুন মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তবে কখন ও কোথায় তাকে দাফন করা হবে সে বিষয়ে কিছু জানাননি তিনি।

মরহুমের পরিবার সূত্রে জানা যায়, গত এক বছর ধরে ক্যান্সারে ভুগছিলেন বুলবুল চৌধুরী। এরপর তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অনকোলোজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. সারওয়ার আলমের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা নেন। পরে তার শ্বাসযন্ত্রে ক্যানসার ছড়িয়ে পড়ে।

১৯৪৮ সালের ১৬ আগস্ট গাজীপুরের দক্ষিণবাগ গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন বুলবুল চৌধুরী। সাহিত্যে অসামান্য অবদানের জন্য ২০২১ সালে একুশে পদক পান তিনি।

বুলবুল চৌধুরীর উল্লেখযোগ্য গ্রন্থের মধ্যে আছে- (ছোট গল্পগ্রন্থ) টুকা কাহিনি, পরমানুষ, মাছের রাত, চৈতার বউ গো। (উপন্যাস) অপরূপ বিল ঝিল নদী, কহকামিনী, তিয়াসের লেখন, অচিনে আঁচড়ি, মরম বাখানি, এই ঘরে লক্ষ্মী থাকে, ইতু বৌদির ঘর, দখিনা বাও, জলটুঙ্গি, পাপপুণ্যি, ঘরবাড়ি, দম্পতি, বলো কি অনুভব।

ট্যাগ:

শিল্প-সাহিত্য
সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব কামাল লোহানী করোনায় আক্রান্ত

banglanewspaper

বিশিষ্ট সাংবাদিক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব কামাল লোহানী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে তার উন্নত চিকিৎসার জন্য সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) নেওয়ার চেষ্টা করছে পরিবার।

শুক্রবার (১৯ জুন) সকালে তার পারিবারিক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

কামাল লোহানীর ছেলে সাগর লোহানী বলেন, গত বুধবার সকালে বাবাকে রাজধানীর হেলথ অ্যান্ড হোপ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে ভর্তির পর তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে কোভিড-১৯ পরীক্ষা করা হয়। ফলাফলে করোনা পজিটিভ আসে।

তিনি দীর্ঘদিন ধরে বার্ধক্যজনিত নানা রোগে ভুগছিলেন। গতমাসেও তাকে একবার হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়েছিল।

২০১৫ সালে একুশে পদক পান কামাল লোহানী। তিনি ২০০৯ থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক ছিলেন।

কামাল লোহানী বাংলাদেশের প্রখ্যাত সাংবাদিক। কামাল লোহানী নামে পরিচিত হলেও তার পারিবারিক নাম আবু নঈম মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল খান লোহানী। তিনি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ, ভাষা আন্দোলন ও একাত্তরের স্বাধীনতা যুদ্ধের একজন চাক্ষুষ সাক্ষী।

কামাল লোহানী দৈনিক মিল্লাত পত্রিকা দিয়ে সাংবাদিকতায় কর্মজীবন শুরু করেন। এরপর আজাদ, সংবাদ, পূর্বদেশ, দৈনিক বার্তায় গুরুত্বপূর্ণ পদে কাজ করেছেন। ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি।

তিনি উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর সভাপতি ছিলেন। এছাড়া ছায়ানটের সম্পাদক হিসেবে চার বছর করে দায়িত্ব পালন করেন। কামাল লোহানী উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী, একাত্তরের ঘাতক-দালাল নির্মূল কমিটি ও সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটেরও উপদেষ্টা।

ট্যাগ:

শিল্প-সাহিত্য
লাশঘর

banglanewspaper

কাজী জুবেরী মোস্তাক

.........................................................................

এই পৃথিবীটা যেন আজ এক লাশঘর
মরছে মানুষ হোকনা সে আপন কিম্বা পর ;
পৃথিবীর উঠোন জুড়ে আজ কারফিউ
এমন দৃশ্য এ ব্রহ্মাণ্ডে দেখেনি আগে কেউ ।

জমজমাট এই মহাবিশ্ব আজকে স্তব্ধ
কাঁটাতারের এপার ওপার নেই কোন যুদ্ধ ;
জাত কিম্বা ধর্মে আজ নেই ভেদাভেদ
মানুষ মরছে মহাবিশ্বে তাইতো আজ খেদ ।

চেনা পৃথিবীর যেন অচেনা এক রুপ
জমজমাট এই মহাবিশ্ব এক নিমিষেই চুপ ;
যার ভেতরে ছিল প্রতিশোধের নেশা
সেও আজ করছে মানুষ বাঁচানোর আশা ।

আনন্দ উল্লাসে মেতে থাকা এ নগরী
আজকে যেন হয়ে গেছে একটা মৃত্যুপুরী ;
মানুষ তুমিও মানুষের পাশে দাঁড়াও
পৃথিবী জুড়ে ভালোবাসার সৌরভ ছড়াও ।

ট্যাগ:

শিল্প-সাহিত্য
লাশঘর

banglanewspaper

কাজী জুবেরী মোস্তাক

.........................................................................

এই পৃথিবীটা যেন আজ এক লাশঘর
মরছে মানুষ হোকনা সে আপন কিম্বা পর ;
পৃথিবীর উঠোন জুড়ে আজ কারফিউ
এমন দৃশ্য এ ব্রহ্মাণ্ডে দেখেনি আগে কেউ ।

জমজমাট এই মহাবিশ্ব আজকে স্তব্ধ
কাঁটাতারের এপার ওপার নেই কোন যুদ্ধ ;
জাত কিম্বা ধর্মে আজ নেই ভেদাভেদ
মানুষ মরছে মহাবিশ্বে তাইতো আজ খেদ ।

চেনা পৃথিবীর যেন অচেনা এক রুপ
জমজমাট এই মহাবিশ্ব এক নিমিষেই চুপ ;
যার ভেতরে ছিল প্রতিশোধের নেশা
সেও আজ করছে মানুষ বাঁচানোর আশা ।

আনন্দ উল্লাসে মেতে থাকা এ নগরী
আজকে যেন হয়ে গেছে একটা মৃত্যুপুরী ;
মানুষ তুমিও মানুষের পাশে দাঁড়াও
পৃথিবী জুড়ে ভালোবাসার সৌরভ ছড়াও ।

ট্যাগ: