banglanewspaper

মহামারী করোনাভাইরাসের ভারতীয় ধরন বা ডেল্টার পর ডেল্টা প্লাস নিয়ে দেশটিতে নতুন করে দুশ্চিন্তা দেখা দিয়েছে। ডেল্টায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়া ভারতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ কাটিয়ে ওঠার আগে ডেল্টা প্লাসে তৃতীয় ঢেউয়ের ধাক্কা আসতে পারে বলে আশংকা বিশেষজ্ঞদের। তিনটি রাজ্যে ইতোমধ্যে ২২ জনের শরীরে ডেল্টা প্লাস ধরনের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। বিশেষজ্ঞরা এটিকে ‘উদ্বেগজনক ভ্যারিয়েন্ট’ হিসেবে বর্ণনা করছেন।

ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ইন্ডিয়ান সার্স-কোভ-২ কনসর্টিয়াম অন জিনোমিক্স জানিয়েছে যে ডেল্টা প্লাস আপাতত ‘উদ্বেগজনক ভ্যারিয়েন্ট (প্রজাতি)’ হিসেবে আছে। যে প্রজাতির করোনাভাইরাস আরও বেশি সংক্রমণ ছড়াতে সক্ষম। সেই প্রজাতির করোনার ফলে মনোকোনাল অ্যান্টিবডির (এক ধরনের অ্যান্টিবডি) প্রতিক্রিয়াও সম্ভবত কম হয়।

ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যসচিব রাজেশ ভূষন জানিয়েছেন, ইন্ডিয়ান সার্স-কোভ-২ কনসর্টিয়াম অন জিনোমিক্সের ২৮টি গবেষণাগার আছে। সেখানে ৪৫ হাজারের বেশি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। তাতে ২২টি নমুনায় ডেল্টা প্লাস প্রজাতির করোনার অস্তিত্ব মিলেছে।

দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, যে ২২ জনের শরীরে ডেল্টা প্লাসের সন্ধান মিলেছে তাদের মধ্যে ১৬ জনই মহারাষ্ট্রের। তবে মহারাষ্ট্রের সর্বত্র সেই প্রজাতি ছড়িয়ে পড়েনি। রত্নাগিরি এবং জলগাঁও জেলায় ডেল্টা প্লাসে আক্রান্তদের খোঁজ পাওয়া গিয়েছে। মধ্যপ্রদেশ (ভোপাল এবং শিবপুরী জেলা) এবং কেরালার (পালাক্কড় এবং পাঠানামথিট্টা) একাংশে ছজন ডেল্টা প্লাস প্রজাতির করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন।

করোনার ডেল্টা ধরনের মতো ডেল্টা প্লাসের প্রভাবে সংক্রমণ যাতে মারাত্মক আকার ধারণ না করে সেজন্য ইতিমধ্যে মহারাষ্ট্র, মধ্যপ্রদেশ এবং কেরালাকে সতর্ক করেছে ভারত সরকার। তিন রাজ্যে সংক্রমণ রুখতে কড়া ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। যেখানে ডেল্টা প্লাস প্রজাতিতে আক্রান্তের খোঁজ পাওয়া গেছে সেখানে নমুনা পরীক্ষা করে চিহ্নিতকরণ এবং টিকাকরণের ওপর জোর দিতে বলেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

ট্যাগ: bdnewshour24