banglanewspaper

সংবাদ সম্মেলনে এসে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র সাঈদ খোকন নানা অভিযোগ তুললেও এর জবাবে কোনো বক্তব্য দিতে উৎসাহ বোধ করছেন না বর্তমান মেয়র ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস। বিষয়টি আদালত ও দুর্নীতি দমন কমিশন সংশ্লিষ্ট বলে মনে করছেন তিনি।

মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকা দক্ষিণ সিটির জনসংযোগ কর্মকর্তা ও মুখপাত্র আবু নাছের স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়।


সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, 'বিষয়টি মহামান্য আদালত ও দুর্নীতি দমন কমিশন সংশ্লিষ্ট। বিচারাধীন কোনো বিষয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বর্তমান মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস কোনো ধরনের বক্তব্য বা প্রতিউত্তর দিতে নিরৎসুক।'

নিজের ও পরিবারের সদস্যদের আটটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ফ্রিজ প্রসঙ্গে মঙ্গলবার সকালে সংবাদ সম্মেলনে আসেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র সাঈদ খোকন। সেখানে এ বিষয়ে মেয়র তাপসকে দোষারোপ করেন খোকন। তাপসকে লক্ষ্য সাঈদ খোকন বলেন, ‘নগর পরিচালনা করতে পারে না। আরও বড় হওয়ার স্বপ্ন দেখো। আরে বড় হওয়ার পথে সাঈদ খোকন বাধা নাকি? তুমি বড় হও তাতে আমার কী? আমাকে মেরে বড় হইতে হইব নাকি? যে দায়িত্ব পাইছো ওইটা মিয়া পালন করো, তারপর বড় হওয়ার স্বপ্ন দেখো।’

সাঈদ খোকন আরও বলেন, 'সিটি করপোরেশনের মেয়র তাপস তার নগর পরিচালনায় সীমাহীন ব্যর্থতা ঢাকতে প্রায়ই আমার প্রতি বিভিন্ন হয়রানি ও বিদ্বেষমূলক আচরণ করে আসছে। আমি বিশ্বাস করি, দুর্নীতি দমন কমিশনের এমন কর্মকাণ্ড তাপসের প্ররোচণায় সংঘটিত হয়েছে।'

এর আগে রবিবার সাঈদ খোকনের তিনটি প্রতিষ্ঠান, স্ত্রী, মা ও বোনের মোট আটটি ব্যাংক হিসাব অবরুদ্ধের বিষয়ে আদালতের আদেশ আসে। সোমবার দুদকের পাবলিক প্রসিকিউটর মাহমুদ হোসেন জাহাঙ্গীর গণমাধ্যম বলেন, ‘মামলার অনুসন্ধান স্বার্থে দুদকের উপ-পরিচালক জালাল উদ্দিন আহমেদ রবিবার সাঈদ খোকনের তিনটি প্রতিষ্ঠানের তিনটি, স্ত্রী ফারহানা আলমের দুইটি, বোন শাহানা হানিফের দুইটি ও মায়ের একটি ব্যাংক হিসাব ফ্রিজের আবেদন করে। আদালত আবেদনটি মঞ্জুর করেন।’

ট্যাগ: bdnewshour24