banglanewspaper

সম্প্রতি ভার্চুয়াল সেমিনারে ‘ডাইনামিকস অব অডিট কোয়ালিটি ইন বাংলাদেশ’ শিরোনামে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ হাউস বিল্ডিং ফাইনান্স কর্পোরেশন (বিএইচবিএফসি) ও ইসলামি ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. সেলিম উদ্দিন।

দি ইনস্টিটিউট অফ চাটার্ড অ্যাকাউন্টস অব বাংলাদেশ (আইসিএবি) কর্তৃক আয়োজিত ওই সেমিনারে প্রবন্ধ উপস্থাপনকালে ড. সেলিম বলেন, ‘জনগণ তথা সমাজের বিশ্বাস ও আস্থাই যেকোনো পেশার হার্ট বিট। যদি কোনো কারণে জনগণের বিশ্বাস ও আস্থা নষ্ট হয়ে যায় এবং বাধাপ্রাপ্ত হয়, তাহলে যেকোনো পেশা বিশেষ করে অডিট পেশা ঝুঁকিতে পড়বে।’

তিনি আরো বলেন, ‘যেকোনো দেশের বিশেষ করে উন্নত দেশে সম্পদ সৃষ্টি এবং জাতীয় আয় প্রবৃদ্ধি বেশির ভাগ ক্ষেত্রে অনেকটাই জবাবদিহিতা এবং শক্তিশালী অডিট ব্যবস্থা ও প্রক্রিয়ার উপর নির্ভর করে।’

ড. সেলিম বলেন, ‘১৯৯৭ এর এশিয়ান ফাইন্সাশিয়াল ক্রাইসিস, ২০০২ এর বৈশ্বিক কর্পোরেট কেলেঙ্কারি, ২০০৮ এর বৈশ্বিক অর্থনৈতিক সংকট এবং সম্প্রতি কর্পোরেট জালিয়াতি যেমন জার্মানির ওয়ারকার্ড ইত্যাদি কারণে অডিট পেশাকে তথা অডিট সর্ম্পকে বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হচ্ছে। কেননা আর্থিক সংকট ও জালিয়াতি সৃষ্টিকারী কোম্পানিগুলোর বেশির ভাগই ত্রুটিহীন নিরীক্ষা প্রতিবেদন প্রদান করা হয়েছিল।’

প্রবন্ধকার ড. সেলিম বিশ্বব্যাপী এই অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে বাংলাদেশে অডিট কোয়ালিটির মান নিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত সকল নীতিমালা, আইনকানুন, কাঠামো বিশেষ করে অডিট পেশায় ইন্টারন্যাশনাল স্ট্যান্ডার্ড অফ কোয়ালিটি ম্যানেজম্যান্ট ১ ও ২ (আইএসকিউএস) প্রয়োগের গুরুত্ব আরোপ করেন। এছাড়াও ড. সেলিম অডিট ব্যর্থতার কারণসমূহ, বাংলাদেশের মোট নিবন্ধিত কোম্পানির বিশ্লেষণ, নিবন্ধিত নিরীক্ষা ফার্মের সংখ্যা এবং জনবলের বিশ্লেষণ, বিএসইসি এবং আইসিএবি কর্তৃক গৃহীত সর্তকতামূলক ব্যবস্থাদির পাশাপাশি বৈশ্বিক নিরীক্ষা ফার্মের বিরুদ্ধে গৃহীত কার্যক্রমের বিস্তারিত বিবরণ তুলে ধরেন। এছাড়া অডিট ফি এবং কোয়ালিটির সঙ্গে পারস্পারিক সম্পর্ক নিয়ে বিশদ আলোচনা করেন।

ভার্চুয়াল সেমিনারে অংশগ্রহণকারীরা আলোচনায় বলেন, ‘বিশ্বব্যাপী অডিট পেশা একটি চমৎকার পেশা হিসেবে কালক্রমে গড়ে উঠেছে। বাংলাদেশে এই পেশার উন্নয়নে অডিট ফার্মের অডিট কোয়ালিটি বিষয়টি অডিট প্রতিবেদন ব্যবহারকারী, বিনিয়োগকারী, স্বার্থ সংশ্লিষ্ট পক্ষ, অডিট সংক্রান্ত আইনী প্রক্রিয়া এবং সংশ্লিষ্ট অডিট নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থাসমূহসহ সবাইকে পারস্পারিক সহযোগিতার প্রতিশ্রুতিসহ আন্তরিক হতে হবে।’

প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট দেওয়ান নুরুল ইসলামের সভাপতিত্বে আইসিএবিএর বর্তমান প্রেসিডেন্ট মাহমুদুল হাসান খসরু আলোচনায় স্বাগত বক্তব্য দেন। এছাড়াও আইসিএবির ভাইস প্রেসিডেন্ট আব্দুল কাদের জোয়ারদার এবং প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট মো: ফারুক আলোচক হিসেবে অংশগ্রহণ করেন। ভাইস প্রেসিডেন্ট সিদ্ধার্থ বড়ুয়া সমাপনী বক্তব্য দেন এবং আইসএিবির সিইও সুভাশীষ বোস অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন। অনুষ্ঠানে পাঁচ শতাধিকের উপরে সদস্য উপস্থিত ছিলেন।

ট্যাগ: bdnewshour24