banglanewspaper

সুস্বাস্থ্যের জন্য দুধ-কলা সত্যিই উপকারী। তবে এই দুধ-কলা একসঙ্গে খাওয়া নিয়ে অনেকের মনে নানান প্রশ্ন রয়েছে। দুধ এবং কলা একসঙ্গে কখনই খালি পেটে খাওয়া উচিত নয়। বিশেষজ্ঞদের মতে, দুধ কলার সংমিশ্রণ উত্তম খাবার নয়। কারণ দুধ ও কলায় রয়েছে দুটি ভিন্ন ভিন্ন উপাদান।


দুধ সম্পূর্ণ আহার এবং এটি শরীরে ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন ডি-র জোগান দেয়। দুধের মধ্যে রয়েছে প্রোটিন, নানান ভিটামিন, রাইবোফ্লোবিন, ভিটামিন বি১২-র মতো পুষ্টিকর উপাদান। ১০০ গ্রাম দুধে প্রায় ৪২ ক্যালোরি পাওয়া যায়। তবে দুধে ভিটামিন সি, ডায়েটারি ফাইবার থাকে না। এ ছাড়াও কার্বোহাইড্রেটও কম থাকে। নিরামিষভোজীদের জন্য দুধ প্রোটিনের একটি উল্লেখযোগ্য উৎস।

অন্যদিকে কলা শরীরের পক্ষে অত্যন্ত উপকারী এবং পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ। ফাইবারে ভরপুর কলা শুধুমাত্র শরীরে শক্তি জোগায় না, বরং নানান রোগ থেকেও রক্ষা করে। কলায় প্রচুর পরিমাণে ভিটামিব বি৬, ম্যাগানিজ, ভিটামিন সি, ডায়েটারি ফাইবার, পটাশিয়াম ও বায়োটিনের মতো পুষ্টিকর উপাদান থাকে। ১০০ গ্রাম কলায় ৮৯ ক্যালরি থাকে। কলা খাওয়ার পর অনেকক্ষণ পেট ভরে থাকে এবং হারিয়ে যাওয়া এনার্জি ফিরে পেতে পারেন। অধিক কার্বোহাইড্রেট যুক্ত কলা ওয়ার্ক আউটের আগে ও পরে খাওয়া যেতে পারে।

দুধ ও কলা অনেকেই একসঙ্গে খেয়ে থাকেন। কিন্তু এই দুটি খাবার খেলে কি সত্যিই অধিক পুষ্টি লাভ করা যায়।

সাধারণত ওজন বৃদ্ধির জন্য প্রায়ই দুধ ও কলা একসঙ্গে খাওয়ার পরমার্শ দেওয়া হয়। দুধ ও কলা মিশিয়ে শেক তৈরি করা হয়, যা অনেকেই প্রিয়।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে আলাদা আলাদা দুধ ও কলা খেলে তা স্বাস্থ্যের পক্ষে অত্যন্ত উপকারী। কিন্তু তারা জোর গলায় এক সঙ্গে এই দুই খাদ্যবস্তু খাওয়ার পরামর্শ দিতে পারেন না। চিকিৎসকরা বানানা শেক পান করা থেকেও বিরত থাকতে বলেন।

অনেকের ধারণা দুধ ও কলার কম্বিনেশন স্বাস্থ্যকর। কারণ দুধে অনুপস্থিত পুষ্টিকর উপাদান কলায় পাওয়া যায় আবার যে উপাদানগুলো কলায় থাকে না, তা দুধের মাধ্যমে গ্রহণ করা যেতে পারে। তবে এই দুই খাদ্য বস্তু এক সঙ্গে শরীরে প্রবেশ করলে বিশেষ সুফল লাভ করা যায় না।

সমীক্ষা অনুযায়ী কলা ও দুধ একসঙ্গে খেলে পাচনতন্ত্র প্রভাবিত হয়। শুধু তাই নয়, সাইনাসেও এর কুপ্রভাব পড়ে। সাইনাস সঙ্কুচিত হলে সর্দি, কফ, এলার্জির মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে। অনেকে মনে করেন যে দুধ ও কলা এক সঙ্গে খেলে পেটের সমস্যা দেখা দিতে পারে। দীর্ঘদিন ধরে দুধ ও কলা একসঙ্গে খেলে বমি, লুজ মোশান হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

আয়ুর্বেদ মতে ফল ও তরলের মিশ্রণ এড়িয়ে যাওয়া উচিত। দুধ ও কলা শরীরে টক্সিফিকেশনকে উদ্দীপিত করে। শরীরের স্বাভাবিক কার্যকলাপকেও প্রভাবিত করে। আয়ুর্বেদ অনুযায়ী কলা ও দুধ একসঙ্গে খেলে শরীরে ভার অনুভূত হয় এবং মস্তিষ্ক দুর্বল হতে শুরু করে।

তাই দুধ ও কলা আলাদা আলাদা খাওয়া উচিত। দুটি খাবারের মধ্যে ২০ থেকে ২৫ মিনিটের পার্থক্য থাকা উচিত। ওয়ার্ক আউট করার আগে বা পড়ে দুধ পানের ২০ মিনিট পর কলা খাওয়া উচিত।

দুধ ও কলার মিশ্রণ আদর্শ মনে হলেও সত্যিকার অর্থে এরা একে অপরের পুষ্টির ঘাটতি তৈরি করে। সাধারণত দুধে খাদ্যআঁশ নেই, যা কলায় আছে। তাই দুধ ও কলা একসঙ্গে শরীরে প্রবেশ করলে একই ধরনের কাজ করে না বরং শরীরের জন্য ক্ষতিকর।

ট্যাগ: bdnewshour24