banglanewspaper

লিডসে প্রথম দিন থেকে ভারতীয় বোলারদের ভালোই ভোগাচ্ছিল ররি বার্নস আর হাসিব হামিদ। দ্বিতীয় দিনে লাঞ্চের আগে তাদের তুলে নিয়ে একটু স্বস্তিই পেয়েছিল কোহলিরা। তবে লাঞ্চের পরে সেই স্বস্তিকে শঙ্কায় রুপ দিল ইংলিশ অধিনায়ক জো রুট আর দীর্ঘদিন পর ফেরা ডেভিড মালান।

আজ লিডসে কার্যত অসহায় রুপই দেখা যাচ্ছিল ভারতীয়দের ক্রিকেটারদের। বোলাররা যেন নিজেকে হারিয়ে খুজছিল উদযাপনের মুহুর্ত। এদিকে শুরুর চার ব্যাটসম্যানের পঞ্চাশ ছাড়ান ইনিংসে লিড শোধ করে ইতিমধ্যেই ২২৩ রানের লিড নিয়েছে স্বাগতিকরা। দিনের এক সেশন আর ৭ উইকেট বাকি থাকতেই রুটরা তুলে নিয়েছেন তিনশ রান। রুট ৮১ রানে অপরাজিত আছেন। তাকে সঙ্গ দিবেন জনি বেয়ারস্টো (২)।


গতকাল প্রথম দিনে বার্নস নিজের স্কোরের সঙ্গে আরও ৯ রান যোগ করেই ফেরেন সামির বলে বোল্ড হয়ে। পরে লাঞ্চের আগে দীর্ঘদিনের ফেরাটার উপলক্ষটা শতকে রুপ দিতে পারেননি ক্লাসিক হাসিব হামিদ। তবে জাদেজার বলে বোল্ড হবার আগে দুর্দান্ত সব শট আর নজরকাড়া ব্যাটিংয়ে ১৯৫ বলে করেন ৬৮ রান।

দারুণ ব্যাট করে হাসিব ফেরার পরে নিজের ফেরাটাকে ফিফটিতে রাঙায় ডেভিড মালান। ১১টি চারের মারে ৭০ রান করেন টি-টোয়েন্টির সেরা ক্রিকেটার। মালান-রুটের ১৩৯ রানের জুটি ভেঙ্গে একটু স্বস্তি নিয়ে চা পানের বিরতিতে যান সিরাজরা।

এর আগে, ইংলিশ পেসারদের গতি আর সুইংয়ে পর্যদুস্ত হয় ভারতীয় ব্যাটাররা। মাত্র ৭৮ রানে অলআউট হয়ে গড়ে নবম সর্বনিম্ন লজ্জার রেকর্ড। ইংলিশদের বিপক্ষে এটি ভারতের তৃতীয় সর্বনিম্ন স্কোর। ২০২০ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দলীয় সর্বনিম্ন ৩৬ রানে অলআউট হয়েছিলেন বিরাট কোহলিরা। এর আগে ইংলিশদের বিপক্ষে ভারতের সর্বনিম্ন স্কোর ছিল লর্ডসে ১৭ ওভারে ৪২ রান।

হেডিংলির লিডসে এদিন শুরু থেকেই চেপে রাখা অ্যান্ডারসনের পর চাপ বাড়ায় অলি রবিনসন। আর শেষের তোপ দাগান কারান-ওভারটন। তিনটি করে উইকেট নেন অ্যান্ডারসন ও ওভারটন। দুইটি করে উইকেট শিকার করেন রবিনসন ও কারান। ভারতের হয়ে সর্বোচ্চ ১৯ রান করেন ওপেনার রোহিত শর্মা। আর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৮ রান রাহানের।

ট্যাগ: bdnewshour24