banglanewspaper

আফগানিস্তানে তালেবান সরকার গঠনের বেশ কয়েকদিন পেরিয়ে গিয়েছে। পাকিস্তানের গোয়েন্দা প্রধান ও কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সরাসরি দেশটিতে ভ্রমণ ও তালেবান নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করলেও এখনো এই সরকারকে স্বীকৃতি দেয়নি তারা। আন্তর্জাতিক আলোচনার কেন্দ্রে থাকা তালেবান সরকারকে প্রথম কোন দেশ স্বীকৃতি দেবে সেদিকে নজর সবার।

রোববার কাবুল সফর করে আফগান প্রধানমন্ত্রী মোল্লাহ হাসান আখুন্দের সাথে বৈঠক করেন কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ বিন আব্দুল রহমান আল থানি। দোহায় ফিরে সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নে কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়ে দেন যে তালেবানের সরকারকে স্বীকৃতি দেওয়ার সময় এখনও আসেনি।

অন্যদিকে তালেবানকে যে দেশটির সবচেয়ে মদতপুষ্ট বলে মনে করা হয়, নতুন কাবুল সরকার নিয়ে সেই পাকিস্তানের ভূমিকাও অস্পষ্ট। পাকিস্তানের সেনা গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই-এর প্রধান লে. জেনারেল ফায়েজ হামিদ গত সপ্তাহে কয়েকদিন কাবুলে ছিলেন। এরই মধ্যে বিমান বোঝাই করে আফগানিস্তানে খাবার এবং ওষুধ পাঠিয়েছে পাকিস্তান।

সোমবার পাকিস্তানের জাতীয় বিমান সংস্থা পিআইএ-র একটি বিমান কাবুলে নেমে যাত্রী নিয়ে এসেছে এবং ইঙ্গিত দিয়েছে যে এখন থেকে নিয়মিত এই রুটে বিমান চলবে। কিন্তু তালেবান সরকারকে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতির প্রশ্নে ইসলামাবাদ এখনও চুপ।

চীন তালেবানের কাবুল দখলের খোলাখুলি তাদের উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছিল। তালেবান সরকার গঠনের পরদিনই অর্থাৎ বুধবার তারা তালেবান সরকারকে স্বাগত জানিয়েছে। চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ওয়াং ওয়েন বিন একে অরাজকতা বন্ধের জন্য একটি প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ বলে বর্ণনা করেন।

তিনি বলেন, 'কাবুলে চীনা দূতাবাস সচল। আমরা নতুন আফগান সরকার এবং তাদের নেতাদের সাথে যোগাযোগ অব্যাহত রাখতে প্রস্তুত।'

যেভাবে তালেবান সরকার গঠন করেছে বা সেই সরকার এখন পর্যন্ত যেভাবে আচরণ করছে, তা নিয়ে কোনো কথা চীন বলেনি। অনেক পর্যবেক্ষক একে তালেবানের প্রতি পরোক্ষ স্বীকৃতি হিসাবে দেখলেও আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতির দিনক্ষণের কোন ইঙ্গিত চীন দেয়নি।

লন্ডনে আফগান সাংবাদিক এবং আফগানিস্তানের রাজনীতির বিশ্লেষক সাইয়েদ আব্দুল্লাহ নিজামী বলেন, কয়েকটি দেশ - বিশেষ করে কাতার, সংযুক্ত আরব আমিরাত (ইউএই), চীন ও পাকিস্তান - তালেবানের সাথে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ রাখছে, কিন্তু আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতির কোন প্রতিশ্রুতি এখনও তারা দিচ্ছে না।

তিনি বলেন, 'দেখে মনে হচ্ছে একটি দেশ যেন আরেকটি দেশের দিকে তাকিয়ে রয়েছে তারা কী করে। একজন সিদ্ধান্ত নিলেই আরেকটি এগুবে। পাকিস্তান তাকিয়ে চীনের দিকে, চীন হয়তো দেখছে পাকিস্তান কী করে। উজবেকিস্তান, তুর্কমেনিস্তান চেয়ে আছে সম্ভবত রাশিয়ার দিকে।'

আর যে সৌদি আরব বাকি বিশ্বের তোয়াক্কা না করে ১৯৯৬ সালে তালেবানকে স্বীকৃতি দিয়েছিল, এবার তারা তালেবানের কাবুল দখলের পর একটি কথাও বলেনি। কাতারের সাথে তালেবানের দহরম মহরম হয়তো সৌদিদের পছন্দ নয়।

ইসলামাবাদে রাজনৈতিক বিশ্লেষক হাসান আসকারি রিজভী বলেন, 'পাকিস্তান তাড়াহুড়ো করতে চাইছে না। তারা এবার একা কিছু করতে চায় না। অন্য আরও দশ-পাঁচ জনের সাথে মিলে সিদ্ধান্ত নিতে চায়,।'

তালেবান সরকার গঠনের পর একমাত্র যে দেশটি খোলাখুলি অভিনন্দন জানিয়েছে, সেটি চীন। গত সপ্তাহে চীন আফগানিস্তানের জন্য তিন কোটি মার্কিন ডলারের জরুরী খাদ্য এবং ওষুধ দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে। আফগানিস্তানে বিনিয়োগ নিয়ে দোহায় তালেবান প্রতিনিধিদের সাথে গত সপ্তাহে চীনাদের কথা হয়েছে বলে জানা গেছে।

অনেক বিশেষজ্ঞ তাই বলছেন যে তালেবান সরকারের প্রতি পাকিস্তান, চীন বা কাতারের আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি অনেকটাই এখন অপ্রাসঙ্গিক, কারণ সম্পর্ক শুরু হয়ে গেছে। সূত্র: বিবিসি

ট্যাগ: bdnewshour24 তালেবান