banglanewspaper

বিশ্বকাপে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ মানে অন্য রকম একটা আমেজ। দলের খেলোয়াড়দের সাপোর্ট করতে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মাঠে ছুটে আসা, সব কাজ বন্ধ রেখে হাঁটু মুড়ে টিভির সামনে বা মোবাইল নিয়ে বসে পড়া। অথবা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে কাঁদা ছোড়াছুড়ি অথবা শক্তিমত্তার প্রদর্শণ, কথাকাটাকাটি হয়ে মারামারি— বাদ থাকে না কিছুই!

২০১১ বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে সেমিফাইনালের আগে ভারতের অধিনায়ক মাহেন্দ্র সিং ধোনি বলেছিলেন, পাকিস্তানকে হারাতে পারলে তাদের আর বিশ্বকাপ দরকার হবে না। এবার দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর আরেকটি মহারণ ২৪ তারিখ। ম্যাচটি নিয়ে ভারত চুপ থাকলেও ইতোমধ্যে যুদ্ধের হুমকি দিয়ে রেখেছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড প্রধান। এবার তারই ধারাবাহিকতায় তিনি জানালেন, আসরটিতে ভারতকে হারাতে পারলেই পিসিবির হাতে আসবে ব্লাঙ্ক চেক মানে কাড়িকাড়ি টাকা!

পিসিবি বর্তমানে আর্থিকভাবে নাজুক অবস্থানে রয়েছে। এমন অবস্থা থেকে উত্তরণের উপায়ও পেয়েছেন বোর্ড প্রধান রমিজ রাজা। আর সেটা মিলবে স্রেফ ভারতকে বিশ্বকাপে হারাতে পারলেই। বোর্ড প্রধানও আশাবাদী চেক মিলবে আর তাদের বোর্ডে আর্থিক সচ্ছলতা আসবে।

পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) চেয়ারম্যান রমিজ রাজাকে উদ্ধৃত করে ক্রিকেট পাকিস্তান বলেছে, একজন ধোনি বিনিয়োগকারী রাজাকে বলেছেন যে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পাকিস্তান যদি ভারতকে হারাতে পারে তাহলে পিসিবিকে একটি ব্ল্যাঙ্ক চেক দেবেন তিনি। ম্যাচ জিতলেই সেই চেক প্রস্তুত করে রাখবেন সেই ব্যবসায়ী।

আর সেই সুযোগটি লুফে নিতে চান বাবর-রিজওয়ানদের বোর্ড প্রধান। যদিও আইসিসির কোনো ইভেন্টে ভারতের বিপক্ষে পাকিস্তানের রেকর্ড খুব বাজে। টি-টোয়েন্টি ও ওয়ানডে বিশ্বকাপ মিলিয়ে ১২ বারের দেখায় এখনও কোনো ম্যাচ জিততে পারেনি চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দেশটি। তবে এবার বাবর আজমরা পুরুস্কারের জন্য হলেও মরিয়া থাকবে ম্যাচটি জিততে।

এদিকে ভারতকে হারিয়ে চেক নিয়ে পাকিস্তান ধোনি ক্রিকেট বোর্ড হলে ইংল্যান্ড আর নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচ খেলবে না। অবশ্য রাজার এমন রাগের বিষয়টি সবার একটু-আধটু জানা। তবে রমিজ রাজার আপাতত লক্ষ্য অর্থনীতিতে সেরা দল হওয়া।

রমিজ রাজা বলেন, ‘যদি আমাদের ক্রিকেটের অর্থনীতি শক্তিশালী হয় তাহলে আমরা ইংল্যান্ড এবং নিউজিল্যান্ডের মতো দলের বিপক্ষে খেলব না। সেরা ক্রিকেট দল এবং সেরা ক্রিকেট অর্থনীতি গড়ে তোলা আমাদের বড় চ্যালেঞ্জ।’

আর রাজার এমন আশার পিছনেও রয়েছে চিরশত্রু ভারত। বিশ্বক্রিকেটের বোর্ড আইসিসিকে ৯০ শতাংশ খরচ প্রদান করে ভারত। আর ভারতের ৫০ শতাংশ অর্থায়নে চলে পাকিস্তান ক্রিকেট। এখানেই রমিজের ভয়। ভারত যদি আইসিসিকে আর অর্থ না দেয় তাহলে ভেঙে পড়বে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড, এমন শঙ্কা রমিজের। আর তাইতো তার লক্ষ্য একটা অর্থনীতিতে শক্তিশালী বোর্ড গড়ার। একটা সুযোগ আছে রমিজ রাজাদের সামনে। সময় বলে দেবে সেটা কি পাকিস্তান ক্রিকেট লুফে নিতে পারবে নাকি পায়ে ঢেলে দিবে!

ট্যাগ: ভারত