banglanewspaper

বিজ্ঞানীদের আশঙ্কা ভবিষ্যতে পৃথিবীর অক্সিজেন কমে দিয়ে মিথেনে ভরে উঠবে বায়ুমণ্ডল। তখন অক্সিজেন থাকবে একেবারেই নগণ্য পরিমাণে। এর ফলে পৃথিবী আবার ফিরে যাবে পুরনো চেহারায়।

এই সংক্রান্ত একটি গবেষণাপত্র প্রকাশিত হয়েছে আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান গবেষণা পত্রিকা ‘নেচার জিওসায়েন্স’-এ। কিন্তু কেন এমন পরিবর্তন হবে? বিজ্ঞানীরা বহুদিন আগেই জানিয়েছিলেন, সূর্যের তেজস্ক্রিয়তার কবলে পড়ে পৃথিবীর সাগর-নদী-খাল-বিল থেকে পানি উবে যাবে। ২০০ কোটি বছরের মধ্যেই জলশূন্য হয়ে পড়ার কারণেই প্রাণহীন হয়ে যাবে পৃথিবী।

কিন্তু সাম্প্রতিক গবেষণা জানাচ্ছে, তার আগে অক্সিজেনহীনতাই পৃথিবী থেকে প্রাণের প্রাচুর্যকে ধ্বংস করবে। কেবলমাত্র অণুজীব ছাড়া আর কেউ টিকতে পারবে না পৃথিবীতে।

এর আগে ‘নিউ সায়েন্টিস্ট’ পত্রিকায় প্রকাশিত এক গবেষণাপত্রে ভূবিজ্ঞানী ক্রিস রেইনহার্ড দাবি করেছিলেন, অক্সিজেন হ্রাসের হার বেশ দ্রুতগামী। নতুন গবেষণাতেও সেই আশঙ্কারই ভবিষ্যৎ ছবি ফুটে উঠছে।

নতুন গবেষণাপত্রে জানানো হয়েছে, সূর্যের উজ্জ্বলতার তারতম্যের ধাক্কায় কার্বন ডাই অক্সাইডের পরিমাণ কমতে শুরু করেছে। আর কার্বন ডাই অক্সাইড কমার অর্থ উদ্ভিদের সালোকসংশ্লেষের পরিমাণ কমা। তার ফলে অক্সিজেন কম উৎপন্ন হবে। আর সেই অক্সিজেনের ঘাটতির কারণেই একসময় পৃথিবী হয়ে যাবে নিষ্প্রাণ। প্রাগৈতিহাসিক পৃথিবীর প্রাণহীন সেই পৃথিবীতে কেবল অণুজীবরাই টিকে থাকতে পারবে।

কতদিনের মধ্যে এমন হতে পারে? বিজ্ঞানীদের আশঙ্কা আর ১০০ থেকে ২০০ কোটি বছরের মধ্য়েই অক্সিজেন উবে যেতে পারে পৃথিবী থেকে। বিজ্ঞানীদের বক্তব্য, এই পরিস্থিতিতে গবেষকদের কাজ, অন্য গ্রহে প্রাণের অনুসন্ধান করা। সেখানে মিথেন কিংবা অন্যান্য় কোনও গ্যাস-প্রধান জীবজগৎ আছে কিনা খোঁজ করে দেখা যেতে পারে।

ট্যাগ: অক্সিজেন